8.23.2014

মদ এমন এক নেষার বস্তুর নাম যা ঈমান কে ধ্বংস করে দেয় খুব সহজে।

ঈমান বিদ্বংসি যতো বিষয় আছে তার মদ্ধ্যে নেশা হলো অন্যতম আর এই নেশার মদ্যে মদ হলো একটি মারাত্বক নেশার নাম যা ইহকাল কে ধংশ করে পরকালের জীবনকে যাহান্নামের জন্যে স্থায়ি আবাসস্থল বানিয়ে দেয়া। তাই আসুন দেখি এই মদের ব্যপারে কোরআন আর হাদিস শরিফ আমাদের কি বলতেছেনঃ

পবিত্র কোরআন উল কারিমের আয়াত শরিফঃ

১  লোকেরা তোমাকে জিজ্ঞেস করে মদ ও জুয়া সম্পর্কেতুমি বল: উভয়ের মধ্যে আছে মহাপাপ এবং উপকারও আছে মানুষের জন্য, তবে এদের পাপ উপকারের চেয়ে অধিক। [সূরা বাকারা-২১৯]

২  ওহে যারা ঈমান এনেছ! মদ, জুয়া, মুর্তিপূজার বেদী এবং ভাগ্য নির্ণায়ক তীর তো ঘৃন্য বস্তু, শাইতানের কাজঅতএব তোমরা সব বর্জন কর যাতে তোমরা সফলকাম হতে পার। [সূরা মায়িদা-৯০]

৩  শাইতান তো তোমাদের মাঝে শত্রুতা ও বিদ্বেষ ঘটাতে চায় মদ ও জুয়ার মাধ্যমে এবং তোমাদের বাধা দিতে চায় আল্লাহর স্মরণ থেকে ও সালাত থেকেতবুও কি তোমরা নিবৃত্ত হবেনা? [সূরা মায়িদা-৯১]

৪ হে ঈমাণদারগণ! তোমরা যখন নেশাগ্রস্ত থাক, তখন নামাযের ধারে-কাছেও যেওনা, যতক্ষণ না বুঝতে সক্ষম হও যা কিছু তোমরা বলছ, আর (নামাযের কাছে যেও না) ফরয গোসলের আবস্থায়ও যতক্ষণ না গোসল করে নাওকিন্তু মুসাফির অবস্থার কথা স্বতন্ত্র আর যদি তোমরা অসুস্থ হয়ে থাক কিংবা সফরে থাক অথবা তোমাদের মধ্য থেকে কেউ যদি প্রস্রাব-পায়খানা থেকে এসে থাকে কিংবা নারী গমন করে থাকে, কিন্তু পরে যদি পানিপ্রাপ্তি সম্ভব না হয়, তবে পাক-পবিত্র মাটির দ্বারা তায়াম্মুম করে নাও-তাতে মুখমন্ডল ও হাতকে ঘষে নাওনিশ্চয়ই আল্লাহ তাআলা ক্ষমাশীল সূরা নিসা-৪৩

পবিত্র হাদীস শরিফে কি বলা হয়েছেঃ

৫  নবী করীম (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেনঃ যে ব্যক্তি দুনিয়ার মদ পান করেছে এরপর সে তা থেকে তওবা করেনি সেই ব্যক্তি আখিরাতে তা থেকে বঞ্চিত থাকবে। [বুখারী ৫১৬২-আ,, উমর (রাঃ) , [তিরমিযী ১৮৬৭]

৬ আয়িশা (আলাইহাস সালাম)  বলেন, নবী করীম (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)  বলেছেন: সব নেশা যাতীয় পানীয়ই হারাম। [বুখারী ৫১৭২, তিরমিযী ১৮৬৯, মুসলিম ৫০৪১]  

৭ নবী করীম (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)  বলেছেন: আমার উম্মতের মাঝে অবশ্যই এমন কতগুলো দলের সৃষ্টি হবে যারা ব্যাভিচার, রেশমী কাপড়, মদ ও বাদ্য যন্ত্রকে হালাল জ্ঞান করবে। [বুখারী ৫১৭৬-আ, , গানাম আশারী (রাঃ )]

৮  কোন শরাব পানকারী শরাব পান করার সময় ঈমানদার থাকেনা। [বুখারী ৬৩০২-আবূ হুরাইরা (রাঃ)]

মদ পানের ভয়াবহতা সম্পর্কে নবী করীম (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)  এর সতর্কবানীঃ মদ পান করা অবস্হায় মদ পানকারী কোন মুসলিমের ঈমান থাকেনাঅতএব যদি এ অবস্হায় মৃত্যু এসে যায় তাহলে তাকে বে-ঈমান হয়ে মরতে হবেকেননা হাদীসে এসেছে: আবূ হুরাইরা (রাঃ) বলেন: নবী করীম (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেন: ব্যভিচারী ব্যাভিচারে লিপ্ত থাকা অবস্হায় ঈমানদার থাকেনা, মদ পানকারী মদ পান করার সময় ঈমানদার থাকেনা এবং চোর চুরি করার সময় ঈমানদার থাকেনা। [হাদীসটি বুখারী (২৪৭৫,৫৫৭৮,৬৭৭২), মুসলিম (৫৭), তিরমিযী (২৬২৫), নাসাঈ (৪৮৭০,৪৮৭১), আবূ দাঊদ (৪৬৮৯), ইবনে মাযাহ (৩৯৩৬), আহমদ (৭২৭৬) ও দারেমী (২১০৬) বর্ণনা করেছেন] 

৯  নবী করীম (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) শরাব পানকারীকে বেত্রাঘাত এবং জুতা মেরেছেন। [বুখারী ৬৩০৩-আ, , মালিক (রাঃ), ইবনে মাযাহ ২৫৭০]

১০ যা নেশা সৃষ্টি করে তাই মদ, আর যা নেশা সৃষ্টি করে তাই হারাম। [মুসলিম ৫০৪৯-ইবন উমর (রাঃ) , তিরমিযী ১৮৬৭]

১১ নবী করীম (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)  বলেছেন: কেহ মাতাল হলে তাকে বেত্রাঘাত করসে পুনরায় মাতাল হলে তাকে বেত্রাঘাত করসে পুনরায় মাতাল হলে আবারো বেত্রাঘাত করএরপর চতুর্থবার বলেছেন: সে যদি পুনরায় মাতাল হয় তাহলে তার গর্দান উড়িয়ে দাও। [ইবনে মাযাহ ২৫৭২-আবূ হুরাইরা (রাঃ)]
১২ মদ পান করবেনাকেননা তা সমস্ত পাপ কাজের উৎস। [ইবনে মাযাহ ৪০৩৪]

১৩ হালাল ও পবিত্র শরবতের পরে অন্যান্য শরবত ঘৃন্য হারাম। [বুখারী ৫১৮৪]

১৪ প্রত্যেক নেশার বস্তুই হারাম। [বুখারী ৫৬৮২-আবূ মুসা (রাঃ, আবূ দাঊদ ৩৬৪৩)

১৫ যা অধিক পরিমাণে পানকরলে নেশার সৃষ্টি হয় তা অল্প পরিমানে পান করাও হারাম। [আবূ দাঊদ ৩৬৪০]

আল্লাহ এবং আখেরাতে বিশ্বাসী কোন ব্যক্তি মদ পান করতে পারে না এবং মদের টেবিলে বসতেও পারে না

আবূ হূরাইরা (রাঃ)  হতে বর্নিত হয়েছে, কারন রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেন: যে ব্যাক্তি আল্লাহ ও শেষ দিবসের প্রতি বিশ্বাস রাখে সে মদ পান করতে পারে না এবং যে ব্যক্তি আল্লাহ ও শেষ দিবসের প্রতি বিশ্বাস রাখে, সে ব্যক্তি সেই দস্তরখানা (টেবিল বা স্হানে)  বসতে পারে না যেখানে মদ পান করা হয়। [হাদীসটি ইমাম ত্ববরনী আল-মুজামুল কাবীর গ্রন্হে (১১৩০০)  বর্ননা করেছেনহাদীসটিকে শায়খ আলবানী সহীহ আখ্যা দিয়েছেন, দেখুন সহীহ তারগীব অত-তারহীব’ (১৭২)]
  • আম্মার ইবনু ইয়াসির (রাঃ)  হতে বর্নিত হয়েছে, তিনি রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)  হতে বর্ননা করেন, তিনি বলেন: তিন শ্রেনীর লোক কখনো জান্নাতে প্রবেশ করবেন না: দায়ূস, পুরুষের বেশধারী এবং অব্যাহতভাবে মদ পানকারীসাহাবীগন বললেন: হে আল্লাহর রাসূল! মদ পানকারীকে আমরা চিনি তবে দায়ূস কে? তিনি বললেন: সেই ব্যক্তি যে তার পরিবারের (স্ত্রীর) নিকট কে প্রবেশ করছে সে ব্যাপারে তার কোন পরোয়াই নাই (কিছুই মনে করে না) আমর বললাম: পুরুষের বেশ ধারনকারী নারী দ্বারা কি বুঝালো হয়েছে? তিনি বললেন: পুরুষের সাথে সাদৃশ ধারনকারী নারী। [হাদীসটি ইমাম ত্ববরনী বর্ননা করেছেনহাদীসটিকে শায়খ আলবানী সহীহ আখ্যা দিয়েছেন, দেখুন সহীহ তারগীব অত-তারহীব (২০৭১, ২৩৬৭) ]

আখেরাতে মদ পানকারীর শাস্তি: জাবের (রাঃ) হতে বর্নিত হয়েছে যে, এক ব্যাক্তি ইয়ামানের জীশানা অ জায়শানু হতে আগমন করে রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) -কে তাদের ভূমিতে উৎপন্ন যুরাহ (ভুট্টা) থেকে প্রস্তুতকৃত শরাব সম্পর্কে জিজ্ঞেস করল যাকে মিযরু বলা হয়ে থাকেরাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)  বলেছেন: তা কি মাতাল করে (নেশা সৃষ্টিকারী? সে ব্যক্তি বলল: জি হ্যাতখন রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)  বললেন: সকল প্রকার মাতালকারী বস্তু হারামআর আল্লাহ এ অঙ্গীকার করেছেন যে, যে ব্যক্তি মাতালকারী বস্তু পান করবে তিনি তাকে তীনাতুল খাবাল ভক্ষন করাবেনতারা বলল: হে আল্লাহর রাসূল! ত্বীনাতুল খাবাল কি? তিনি বললেন: জাহান্নামীদের ঘাম অথবা জাহান্নামীদের থেকে নির্গত দুর্গন্ধযুক্ত নিকৃষ্ট  রস। [হাদীসটি ইমাম মুসলিম (২০০২)  ও নাসাঈ (৫৭০৯) বর্ননা করেছেন।]

মদ এমন এক নেষার বস্তুর নাম যা ঈমান কে ধ্বংস করে দেয় খুব সহজে।
মদ এমন এক নেষার বস্তুর নাম যা ঈমান কে ধ্বংস করে দেয় খুব সহজে।
মদ পানকারীর ৪০ দিনের সালাত কবুল করা হবে না: আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রাঃ)  হতে বর্নিত হয়েছে, তিনি বলেন: রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)  বলেছেন: যে ব্যক্তি মদ পান করে মাতাল হয়ে যাবে তার ৪০ দিনের সালাত কবূল করা হবেনাসে যদি এ অবস্হায় মারা যায় তাহলে জাহান্নামে প্রবেশ করবে। (পান করার পর যদি সে তাওবাহ করে তাহলে আল্লাহ তার রাওবাহ কবুল করবেনঅত:পর সে যদি পুনরায় মদ পান করে মাতাল হয়ে যায় তাহলে তার ৪০ দিনের সালাত কবুল করা হবেনাঅত:পর সে যদি এ অবস্হায় মারা যায় তাহলে সে জাহান্নামে প্রবেশ করবেঅত:পর সে যদি ৪র্থ বার মদ পান করে তাহলে কিয়ামতের দিন আল্লাহর উপরে তাকে রাদাগাতুল খাবালত্বীনাতুল খাবাল পান করানো অপরিহার্য হয়ে যায়তারা বলল: হে আল্লাহর রাসূল! রাদাগাতুল খাবালত্বীনাতুল খাবাল কি? তিনি বললেন: জাহান্নামীদের থেকে নির্গত দুর্গন্ধযুক্ত নিকৃষ্ট রস।[হাদীসটি ইবনু মাযাহ (৩৩৭৭) এবং ইমাম আহমদ ও তিরমিযীও বর্ননা করেছেন।]

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ পোষ্ট টা পড়ে যদি ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট বক্স এ আপনার মতামত জানাবেন আর আপনার বন্ধু বান্দব দের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন্নাআসসালামু আলাইকুমফি আমানিল্লাহ !!! আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে সঠিক বুজ দান করুন।


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: