6.24.2016

রাষ্ট্রবিরোধী মন্তব্য করার পরেও রানা দাশ গুপ্তের বিচার হচ্ছেনা কার ইঙ্গিতে

রানা দাসগুপ্তের ধৃষ্টতা সীমাহীন! একদিকে সে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদিকে আহবান করতেছে -বাংলাদেশে সরাসরি হস্তক্ষেপ করতে, আবার দিল্লিতে গিয়ে মোদির সাথে দেখা করে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অভিযোগ জমা দিয়ে আসছেসে নরখাদক মোদিকে বলেছে বাংলাদেশের উপর হস্তক্ষেপ করতেরানা যা করেছে, সেটা পরিস্কার সংবিধানবিরোধী রাষ্ট্রদ্রোহিতা

কারন বাংলাদেশের সংবিধানে বলা আছেঃ -
১.২৮। (১) কেবল ধর্ম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারীপুরুষভেদ বা জন্মস্থানের কারণে কোন নাগরিকের প্রতি রাষ্ট্র বৈষম্য প্রদর্শন করিবেন না http://goo.gl/n1emqP

২. ২৭সকল নাগরিক আইনের দৃষ্টিতে সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভের অধিকারীhttp://goo.gl/F7LgPa

৩. ৩১আইনের আশ্রয়লাভ এবং আইনানুযায়ী ও কেবল আইনানুযায়ী ব্যবহারলাভ যে কোন স্থানে অবস্থানরত প্রত্যেক নাগরিকের এবং সাময়িকভাবে বাংলাদেশে অবস্থানরত অপরাপর ব্যক্তির অবিচ্ছেদ্য অধিকার এবং বিশেষতঃ আইনানুযায়ী ব্যতীত এমন কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাইবে না, যাহাতে কোন ব্যক্তির জীবন, স্বাধীনতা, দেহ, সুনাম বা সম্পত্তির হানি ঘটেhttp://goo.gl/LBsOZg

এই মালউন রানা দাস গুপ্ত একজন সরকারী বেতনভুক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর

প্রশ্ন হল-
১.সরকারী কর্মচারী হয়ে দেশবিরোধী মন্তব্য করা কি সরকারী চাকরী আইনবিরুদ্ধ নয়?

২. সরকারী কর্মকর্তাদের বিদেশ যেতে হলে জিও অর্ডার নিতে হয়মোদির সাথে সাক্ষাৎ করার জিও অর্ডার দিল কে?

৩. সরকারী কর্মকর্তা হয়ে অন্য দেশের প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রনে সরকারের অনুমতি ব্যতিত গেল কি করে?

৪. সে যে মোদির সাথে সাক্ষাতে যাচ্ছে তা কি সরকারকে অবহিত করেছে?

দেখা যাচ্ছে মালউন রানা দাস গুপ্ত যা করেছে তা সরকারী চাকরিবিধি এবং সংবিধানবিরোধী রাষ্ট্রদ্রোহীতাপৃথিবীর সকল দেশের আইনেই এর জন্য সাজা মৃত্যুদন্ড

এদেশে হিন্দুদেরকে জামাই আদরে রাখার পরেও কয়দিন পর পর সে ছুটে যাচ্ছে দিল্লি! রানা দাসের এই রাষ্ট্রদ্রোহী তৎপরতায় আরও অনেকে উৎসাহী হয়ে উঠছেরাষ্ট্রদ্রোহি এসব তৎপরতা থামাতে ওকে দন্ডটা দেয়া ছাড়া বিকল্প নাই তাকে চাকরিচ্যুত করে নাগরিকত্ব বাতিল করে রাষ্ট্রের শত্রু ঘোষনা করা হোক। গ্রেফতার করে ফাঁসিতে ঝোলানো হোক


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: