7.20.2016

সরকারের কাকে খুশি করা উচিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কে নাকি দেশের আপামর জনসাধারণকে?

গত সোমবার কক্সবাজারের মহেশখালীতে ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণে মার্কিন প্রতিষ্ঠান 'এক্সিলারেট এনার্জি'র সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। সম্ভবত এর মাধ্যমে শেভরনের পর কোনো মার্কিন কোম্পানির সাথে সবচেয়ে বড় চুক্তিতে আবদ্ধ হলো বাংলাদেশ। (http://goo.gl/FbPsfm)

যাই হোক, অনেক দিন পর হঠাৎ করে, বিশেষ করে এ মুহুর্তে মার্কিন কোম্পানিকে গ্যাস টার্মিনাল নির্মাণ করতে দেওয়াই প্রমাণ করছে সরকার চাইছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক ভালো করতে। বিশেষ করে যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আওয়ামী সরকারকে চাপ দিচ্ছে আইএস আছে তা স্বীকার করতে।

কিছুদিন আগে আমরা তুরষ্কের সামরিক অভুথ্যান দেখেছি। দেখেছি কিভাবে দেশটির জনগণ খালি হাতে মাঠে নেমে বড় বড় ট্যাঙ্ক থামিয়ে দিয়েছে, ব্যর্থ করে দিয়েছে সামরিক অভুথ্যান । উল্লেখ্য এরদোগানের ব্যাপক জনপ্রিয়তা না থাকলে এমনটি করা সম্ভব ছিলো না, আর বলাই বাহুল্য জনগণের জন্য কিছু না করলে এরদোগানের এত জনপ্রিয় হওয়ারও কথা ছিলো না। ক্ষমতায় এসে তুরষ্কের ব্যাপক উন্নতি করায় এরদোগান জনগণের কাছে আজকে এতো জনপ্রিয় হয়েছে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তুরষ্কের সামরিক অভ্যুথান সম্পর্কে বলেছেন- এই ব্যর্থ অভ্যুথান থেকে ষড়যন্ত্রকারীদের শিক্ষা নেওয়া উচিত। আমার মনে হয়, এই ঘটনা থেকে বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও শিক্ষা নেওয়ার অপশন শেষ হয়নি। উনার অন্তত এ শিক্ষা নেওয়া উচিত- জনগন সাথে থাকলে যে কোন বড় ধকল সামলানো যায় যদি মহান আল্লাহ পাক সহায় হোন।

আর হ্যা, জনগণকে সাথে পাওয়ার জন্য দরকার জনগণের জন্য কিছু করা। আমি জনগণের জন্য কিছু করবো না, খালি বিদেশী শক্তিদের খুশি করবো, দেশের সম্পদ তাদের হাতে তুলে দিবো, তাহলে কিন্তু বিপদের দিনে ঐ জনগণকে কাছে পাওয়া যাবে না, আর যে বিদেশী শক্তিকে একদিন জনগণের সম্পদ দিয়ে খুশি করা হয়েছে, তারা তো নিজেই ষড়যন্ত্রকারী।


তাই গত কয়েক বছরের ক্ষমতায় আওয়ামী সরকার কতটুকু বিদেশী শক্তিগুলোকে খুশি করলো, আর কতটুকু জনগণকে খুশি করলো সেটার হিসেব তাদের মিলিয়ে দেখা উচিত নাহলে ভবিষ্যতে যদি বড় ধরনের কোনো তুফান আসে তুর্কির মতো তখন জনগণ কে যে সাথে পাওয়া যাবেনা তা সহজেই অনুমেয়।


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: