8.11.2016

ফের কাট্টা কাফের মালউন গৌড়গোবিন্দের কবলে পবিত্রভূমি সিলেট অথচ মুসলমান ঘুমিয়ে আছে


ফের কাট্টা কাফের মালউন গৌড়গোবিন্দের কবলে পবিত্রভূমি সিলেট অথচ মুসলমান ঘুমিয়ে আছেঃ অত্যাচারী হিন্দু রাজা গৌড়গোবিন্দের নাম শুনেনি সিলেটে এমন লোক খুজে পাওয়া দুষ্কর। এক সময় এ অত্যাচারি রাজা সিলেট (তৎকালীন নাম শ্রীহট্ট) শাসন করতো। তার অত্যাচারে মানুষ থাকতো তটস্থ।

অত্যাচারী হিন্দু গৌড়গোবিন্দের শাসনের সময় সিলেটে গরু জবাই নিষিদ্ধ ছিলো। ইতিহাস বলে- সে সময় সিলেটে বুরহানুদ্দিন রহমতুল্লাহি আলাইহি নামক এক তাকওয়াশিল ফরহেজগার মুসলিম বসবাস করতেন। তিনি নিজ পুত্রের জন্ম(বিলাদত) উপলক্ষে লুকিয়ে লুকিয়ে একটি গরু জবাই করেছিলেন। কিন্তু সেই গরুর জবাইকৃত গোশতের একটি টুকরা একটি কাক মুখে করে নিয়ে অত্যাচারী হিন্দু রাজা গৌড়গোবিন্দের দরবারে ফেলে আসে।

গরুর গোশতের টুকরা দেখে মারাত্মকভাবে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে অত্যাচারী হিন্দু রাজা গৌড়গোবিন্দসে বোরহানুদ্দিন রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে খুজে বের করে। অত্যাচারী হিন্দু গৌড়গোবিন্দ বোরহানুদ্দিন রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে আটক করে উনার দুই হাত কেটে ফেলে, তারপর উনার নিষ্পাপ শিশুপুত্রকে নৃশংসভাবে শহিদ করে।

বোরহান উদ্দিন রহমতুল্লাহি আলাইহি এ নিষ্ঠুরতায় সিলেট ত্যাগ করে বাংলার তৎকালীন রাজা শামস উদ্দীন ফিরোজ শাহের নিকট গিয়ে এই নিষ্ঠুর হত্যা কান্ডের অভিযোগ করে এর বিচার প্রার্থনা করেন। ফিরোজ শাহ উনার ভাগ্নে সিকান্দর গাজীকে অভিযানে পাঠালেন। শাহী সৈন্য যখন ব্রহ্মপুত্র নদী পার হতে চেষ্টা করে তখনি অত্যাচারী হিন্দু রাজা গৌড়গোবিন্দের সৈন্যরা ঐন্দ্রজালিক অগ্নীবাণ নিক্ষেপ করে সমস্ত চেষ্টাকে বিফল করে ফেলে।

সিকান্দর গাজীর ব্যর্থতা দিল্লীর সম্রাট আলাউদ্দীন খিলজীর কাছে পৌছে যায়। এসময় আওলাদে রাসুলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত শাহজালাল রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি হযরত নিযাম উদ্দিন আউলিয়া রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার অতিথি হয়ে দিল্লী অবস্থান করছিলেন। বোরহান উদ্দিন রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার সাথে সাক্ষাত করে অত্যাচারী হিন্দু রাজা গৌড়গোবিন্দের অত্যাচারের বর্ণনা দেন। ফলে চূড়ান্ত অভিযানে সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত শাহজালাল রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি তাদের সংগী সঙ্গী হতে মত দেন। পবিত্র দ্বীন ইসলামের আধ্যাত্মিক ধর্মপ্রচারক সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত শাহজালাল রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি উনার ৩৬০ জন সঙ্গী নিয়ে সিলেটে প্রবেশ করেন। উল্লেখ্য যে অত্যাচারী হিন্দু রাজা গৌড়গোবিন্দ যাদু বিদ্যায় খুব পারদর্শী ছিলোসে তার পুরো ক্ষমতা সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত শাহজালাল রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার উপর প্রয়োগ করেকিন্তু তা বিফল হয়। এক পর্যায়ে সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত শাহজালাল রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বিজয়ী হন এবং অত্যাচারী হিন্দু রাজা গৌড়গোবিন্দ ভয় পেয়ে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। স্বাধীন হয় পবিত্র ভূমি সিলেট।

আজ থেকে প্রায় ৭শ’ বছর আগে অত্যাচারী হিন্দু রাজা গৌড়গোবিন্দের কবল থেকে মুক্ত হয়ে ধন্য হয়েছিলো সিলেটবাসী। কিন্তু নতুন করে যেনো ফের অত্যাচারী হিন্দু রাজা গৌড়গোবিন্দের কবল পড়তে যাচ্ছে সিলেট। সম্প্রতি সিলেটের তারাপুরে মসজিদসহ ৩০০০ পরিবারের বাড়িঘরমেডিকেল কলেজস্কুলব্যবস্যা প্রতিষ্ঠানসহ প্রায় ৪৪৪ একর (১৩৩২ বিঘা) এলাকা উচ্ছেদ করে ১টি মাত্র মন্দির প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম চলছে। ঠিক যেন গৌড়গোবিন্দের অত্যাচারি শাসন নতুন করে চালু হয়েছে। 

হে সিলেটবাসীসাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত শাহজালাল রহমতুল্লাহি আলাইহি মতো তোমরাও নব্য অত্যাচারী হিন্দু গৌড়গোবিন্দদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করো। নয়ত নব্য গৌড়গোবিন্দদের ক্ষপ্পরে তোমাদেরও বোরহানুদ্দিন রহমতুল্লাহি আলাইহি ও উনার পুত্রের ভাগ্য বরণ করতে হতে পারে।

সিলেটের ইতিহাস জানতে পড়তে পারেনঃ- http://www.sylhet.gov.bd/node/71032/জেলার-ঐতিহ্য


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: