8.20.2016

জাকির নায়েকের রাম কৃষ্ণ নবী হতে পারে এই কথার দ্বারা যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে তার যুক্তিপূর্ণ জবাব

জাকির নায়েকের রাম কৃষ্ণ নবী হতে পারে এই কথার দ্বারা যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে তার যুক্তিপূর্ণ জবাব
জাকির নায়েকের রাম কৃষ্ণ নবী হতে পারে এই কথার দ্বারা যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে তার যুক্তিপূর্ণ জবাব
জাকির নায়েক বলেছে," কুরআন শরীফে মাত্র ২৫ জন নবীর কথা বলা হয়েছেঃ কারন মহান আল্লাহ পাক বলেছেন এমন কোন জনপদ নেই যেখানে আমি সতর্ককারী পাঠাইনি। সে অনুযায়ী হিন্দুস্তানেও নবী এসেছিলো। সে জন্য রাম এবং কৃষ্ণ নবী হতে পারে নাও হতে পারে। "এ কথার দ্বারা জাকির নায়েক রাম এবং কৃষ্ণকে নবী হওয়ার একটা সম্ভাবনার দ্বার উন্মুক্ত করেছে। এর ফলে সুক্ষ্মভাবে জাকির নায়েক যেটা বোঝাতে চেয়েছে, কৃষ্ণ যদি নবী হয় তবে-

(১) কৃষ্ণ ছোটবেলায় গাছে উঠে পুকুরে মহিলাদের গোসল করা দেখতো এবং তাদের কাপড়গুলো চুরি করে নিয়ে যেত। দুই হাত উত্তোলন করে তার কাছে কাপড় ফেরত নিতে আসার শর্তে সে মহিলাদের নগ্ন দেহ দর্শন করে কাপড় ফেরত দিত। এখন যদি কৃষ্ণকে নবী ধরে নেয়া হয় তবে জাকির বোঝাতে চেয়েছে একজন নবীর পক্ষে ছোটবেলায় এমন খারাপ চারিত্রের হওয়া সম্ভব।
আসতাগফিরুল্লাহ !! নাউযুবিল্লাহ !!

(২) রাধা হচ্ছে কৃষ্ণের আপন মামি। আপন মামির সৌন্দর্যে কৃষ্ণ মোহিত হয়ে এক রাতে রাধাকে ধর্ষন করে। আর রাধাও তার ধর্ষন উপভোগ করে। পরে নিজের ধর্ষিত মামিকে নিজের রক্ষিতা হিসাবে নিজের কাছে রেখে দেয়। জাকির নায়েক কৃষ্ণকে নবী হওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি করে এটা বুঝাতে চেয়েছে একজন নবীর পক্ষে এমন কুচরিত্রের হওয়া সম্ভব।"
আসতাগফিরুল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ !

(৩) উইকিপিডিয়া তথ্য অনুযায়ী কৃষ্ণ এর ১৬১০০ জন গোপীনি বা রক্ষিতা ছিলো। অর্থাৎ ষোল হাজার বছর বাঁচলেও প্রতিদিন একটা করে রক্ষিতা ভক্ষন করেছে কৃষ্ণ। অর্থাৎ সারাদিন সব কাজ রেখে শুধু মহিলাবাজী করেছে। জাকির নায়েক কৃষ্ণকে নবী হওয়ার সম্ভাবনা সৃষ্টি করে এটাই বুঝতে চেয়েছে একজন নবীর পক্ষেও এমন বিপুল সংখ্যক রক্ষিতা পালন সম্ভব।
নাউযুবিল্লাহ! আসতাগফিরুল্লাহ !!

এবার আশা করি বুঝতে পেরেছেন জাকির নায়েকের পলিসি। এটা মূলত সে করেছে হিন্দুদের প্ররোচনায়। কারন স্বভাবতই হিন্দুদের বদচরিত্র দেবতা নিয়ে সবাই ঘৃণা করে থাকে। মুসলমানদের অন্তর থেকে এটা দূর করতে হিন্দুরা জাকির নায়েককে ব্যবহার করেছে। এর ফলে তারা যেটা বুঝতে চেয়েছে-
- রাম কৃষ্ণ বাইচাঞ্চ নবী হতেও পারে তাই তাদের সমালোচনা করা যাবে না।

- এরা যদি নবী হতেও পারে তাই এদের রীতির উপর শ্রদ্ধা রাখতে হবে।

- যেহেতু এরা নবী হতে পারে তাই এদের এমন দুঃশ্চরিত্র কর্মকান্ডের জন্য কোন প্রতিক্রয়া দেখানো যাবে না। ইত্যাদি..!

দেখুন, ইসলাম হলো পরিপূর্ণ দ্বীন ব্যবস্থা। এখানে বিন্দুমাত্র সন্দেহের কোন সুযোগ নেই। সবকিছু দিবালোকের ন্যায় পরিস্কার। ইসলামই একমাত্র ধর্ম যেটা উজ্জ্বল, স্পষ্ট, নির্ভরযোগ্য দলীল দ্বারা প্রতিষ্ঠিত। যেকারনে আজ পর্যন্ত কারো পক্ষে ইসলামের বিরুদ্ধে কোন যুক্তি দ্বার করানো সম্ভব হয় নাই। অথচ এই হিন্দুর দালাল জাকির নায়েক ওরফে কাফির নালায়েক রাম কৃষ্ণ নামক সম্পূর্ণ ভিত্তীহীন কাল্পনিক গাজাখুরী গল্পের বদচরিত্র নায়ককে নবী হওয়ার সম্ভাবনার কথা বলে। এটা সে করেছে মূলত হিন্দুদের খুশি করতে এবং মুসলমানদের বিভ্রান্ত করতে।


এই হলো হিন্দু এজেন্ট জাকির নায়েকের ষড়যন্ত্র। দুঃখের বিষয় একশ্রেণীর মূর্খ জাহেল এসব কিছুই বোঝে না। তারা অন্ধভাবে জাকির পুজায় মগ্ন। আল্লাহ পাক সবাইকে দ্বীনের সহীহ বুঝ দান করুন। আমীন !!


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: