8.20.2016

রাগীব রাবেয়ার অবদান নামক ফেসবুক পোষ্টে হিংসুটে মুসলিমদের অন্তরের বিষাক্ত বক্তব্যে আমি নির্বাক

কেন এক নিমিষেই রাগীব আলী ও তার স্ত্রী রাবেয়া খাতুনের এত অবদান অস্বীকার করা হলো? এই শিরোনামের একটা স্ট্যাটাস সিলেটের বিভিন্ন গ্রুপের শেয়ার হয়। সেখানে সিলেটবাসীসহ বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন মুসলমান কমেন্ট করেছে। এর মধ্যে কিছু কিছু কমেন্ট এরকম-

১) জনকল্যাণ ভালো কিন্তু দেবোত্তর সম্পত্তি দখল করা ভালো না ।
২) অবৈধ টাকা হিন্দু সম্পত্তি নিয়ে দানবীর উপাধি লাগানো কি দরকার ছিলো ?
৩) অন্যের সম্পদ লুট করে, ঢাক ঢোল বাজিয়ে দান করা।
৪) অবৈধভাবে সম্পদ আহরণ করে যতই দান করুক সেটা বৈধ বলা যায় না।

কমেন্টগুলো পড়ে আমি নিশ্চিত হলাম- বাংলাদেশ খুব শিঘ্রই ফিলিস্তিন হতে যাচ্ছে। গত কয়েকদিন আগে গুগল যেমন ফিলিস্তিনের ম্যাপ মুছে ফেলেছে, পুরোটাই ইসরাইল হয়ে গেছে, খুব তাড়াতাড়ি বাংলাদেশও ভারতের বুকে মিশে যাবে, আপনি নিশ্চিত থাকতে পারেন।

ভারত ও হিন্দু তোষণের জন্য আপনি সরকারের দোষ দেবেন ?? আমি এতে একমত নই। অবশ্যই এর পেছনে বাংলাদেশের জনগণ দায়ি। যেমন মানুষ তেমন তার সরকার। বাংলাদেশের মুসলমানদের মধ্যে হিন্দুপ্রীতি এতটাই প্রবল যে তাদের নূণ্যতম বিবেক বুদ্ধি লোপ পেয়েছে। হিন্দুরা সম্পত্তি নিয়ে যাক, সেটা সমস্যা নয়। কিন্তু কিছুতেই যেন মুসলমানরা সুবিধা না পায় সেদিকেই তাদের খেয়াল।

আপনি কমেন্টগুলো পড়ুন, প্রত্যেককেই রাগীব আলীকে দোষারোপ করছে। কিন্তু কেউ কি বিষয়টি একটু চিন্তা করেছে বলে মনে হয় না। সবাই বলছে রাগীব আলীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে, কারণ সে জালিয়াতি করেছে । কিন্তু মানুষ কিন্তু এটা বলছে না ঐ হিন্দু সেবায়েতের বিরুদ্ধে জালিয়াতির কারণে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে। কারণ সে তার দেবোত্তর জমি রাগীব আলীর কাছে বিক্রি করেছিলো। (http://goo.gl/a8HBlj)

অর্থাৎ রাগীব আলী জমি কিনে অন্যায় করেছে, কিন্তু হিন্দু সেবায়েত জমি বিক্রি করে অন্যায় করেনি। আমি যতদূর জানি, ঐ সময় (১৯৮৮ সাল) হিন্দু সেবায়েতের অনেক টাকার দরকার ছিলো, তাই সে রাগীব আলীর কাছে জমি বিক্রি করতে চায়, সেই সময় প্রায় ১ কোটি টাকা দিয়ে জমিটি সরকারি নিয়ম নেমেই লিজ নিয়েছিলো রাগীব আলী।
কিন্তু অবাক করার বিষয়,
আজকে যখন রাগীব আলীর মত ৯০ বছরের এক বৃদ্ধের নামে ওয়ারেন্ট জারি হলো, তখন অনেকেই এমন কি সিলেটবাসীরা পর্যন্ত বললো- খুব ভালো হইছে, খুব ভালো হইছে। এতদিনে শাস্তি পাইছে। এতদিন খুব নাম ফুটাইছে, এখন উপযুক্ত শাস্তি হইছে।


এই হচ্ছে বাংলাদেশের মুসলমাদের মন-মানসিকতা আর হিংসা। নিজ জাতির মধ্যে এত হিংসা থাকলে অন্য জাতিকে কষ্ট করে বাংলাদেশকে দখল করতে হবে না, এই হিংসুটে জনগনই খুশি হয়েই বিদেশীদের বলবে বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রণ নিতে, ঠিক যেভাবে বিশ্বাসঘাতকরা পলাশীতে ইংরেজদের ডেকে এনেছিলো, সেই একইভাবে।


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: