9.01.2016

পবিত্র ঈদুল আযহা এলেই গরুর গোশত নিয়ে এত চুলকানি উঠে কেনো ?


পবিত্র ঈদুল আযহা এলেই গরুর গোশত নিয়ে এত চুলকানি উঠে কেনো? আমি দেখলাম যে আমাদের মুসলমানদের কোরবানীর ঈদ আসলেই হলুদ মিডিয়ায় খুব জোরেশোরে শুরু হয় গরুর গোশত নিয়ে চুলকানি। গরুর গোশতে অমুক সমস্যা, তমুক সমস্যাসহ নানান ত্যানা প্যাচাতে থাকে। তাদের অনেক কথার কোন ভিত্তি না থাকলেও ঠিক ঈদের আগে গরুর গোশত বিরোধী নানান অপপ্রচারে লিপ্ত হয় তারা। যেমন, গত বছরের খবর দেখুনঃ

১) আসছে কোরবানি, প্রস্তুত হচ্ছে মানবদেহের ভয়ঙ্কর বিষ

(http://goo.gl/mylPbf)

২) টার্গেট শতকোটি টাকার বিষ বাণিজ্য

(http://goo.gl/HsGyBQ)

৩) কোরবানির পশুকে মোটাতাজাকরণে ক্ষতিকর বিষ প্রয়োগ

(http://goo.gl/q4PkG3)

৪) গরু মোটাতাজাকরণে ব্যবসায়ী ও খামারিরা

(http://goo.gl/0X0cHY)

৫) ইনজেকশন ও ট্যাবলেটে গরু মোটাতাজাকরণ

(http://goo.gl/CTldpT)

৬) ঈদের গরু : স্টেরয়েডে মাংস নয়, বাড়ে পানি

(http://goo.gl/RvlEHs)

৭) গরু মোটাতাজাকরণ ও জনস্বাস্থ্যের ঝুঁকি

(http://goo.gl/ZCyhBa)

৮) কোরবানি সামনে রেখে ক্ষতিকর ওষুধে পশু মোটাতাজাকরণ

(http://goo.gl/QzbQuK)

৯) ঝালকাঠিতে কোরবানির পশুকে খাওয়ানো হচ্ছে বিষাক্ত ওষুধ

(http://goo.gl/TCw0GN)

উপরের অনেক মিডিয়া আছে যারা ডাইরেক্ট উগ্রহিন্দুদের টাকা খেয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে, আর কেউ আছে অপরেরটা দেখাদেখি খবর কপি করে ছড়াচ্ছে, বিষয়টির গভীরতা অনুধাবন করছে না।

এখানে যে কথাটি মনে রাখতে হবে-------

ক) গরুর শরীরে মোটাতাজাকরণ ঔষধ দিলে তা গরুর মল-মূত্র দিয়ে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অধিকাংশ বের হয়ে যায়।

খ) বাকি ঔষধ কিছু থাকলেও তা গোশত রান্নার করার পূর্বে ধৌত ও উচ্চতাপে রান্নার সময় নষ্ট হয়ে যায়।

গ) গরুর শরীরে অতিরিক্ত মোটাতাজাকরণ ঔষধ দিলে গরুর শরীরে পানি চলে আসে এবং গরুটি অসুস্থ ও দুর্বল হয়ে পরে। অনেকক্ষেত্রে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গরুটি মারা যায়। তাই এ ধরনের মোটাতাজা গরু কখনই হাটে তোলা সম্ভব নয়।

ঘ) একটি মাঝারি ওজনের গরু মোটাতাজাকরণে যে স্টেরয়েড নামক উপাদান ব্যবহার করা হয়, একটি ডিমে প্রাকৃতিকভাবে তার থেকে অধিক পরিমাণে স্টেরয়েড থাকে। তাই স্টেরয়েডের কারণে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। (http://goo.gl/UGjpvO)

ঙ) গরু মোটাতাজাকরণ সিস্টেমটি একসময় বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে যুব উন্নয়ন কার্যক্রমের মাধ্যমে শেখানো হয়েছিলো। যে বিষয়টি এতদিন সরকারিভাবে শেখানো হলো, সেটা আজ হঠাৎ করে বিষাক্ত হয়ে গেলো কেন ?

বলাবাহুল্য সারা বছর গরুর মোটাতাজা হচ্ছে সেই খবর নাই, ঈদ আসলেই মিডিয়াগুলোর অপপ্রচার মাথাচারা দিয়ে উঠে। মূলতঃ গরুর গোশত বিরোধী অপপ্রচারের মূল ভিত্তি হচ্ছে ভারতীয় উগ্রহিন্দুত্ববাদীদের টাকা। ভারতীয় উগ্রহিন্দুরা বাংলাদেশের মিডিয়াগুলোতে ঈদের আগে টাকা ঢালে বলেই এ ধরনের অপপ্রচার শুরু হয়। বাংলাদেশের মানুষকে এ ধরনের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে সচেতন হতে হবে।


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: