9.27.2016

ভারত নিজ দেশে বানায় সবুজ বিদ্যুৎ কেন্দ্র আর আমাদের বাধ্য করে পরিবেশ বিধ্বংসী কয়লা বিদ্যুতে


আপনি কি জানেন যে বিশ্ববাটপার ভারত নিজ দেশে বানায় সবুজ বিদ্যুৎ কেন্দ্র আর আমাদের বাধ্য করে পরিবেশ বিধ্বংসী কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র বানাতে অথচ আমরা মূর্খ বাংলাদেশিরা তা বুঝতেই পারছিনা কিন্তু কেনো আমরা এতো অথর্ব হলাম কিভাবে?

একটু সরল অংক কষে বের করুন তো- ২৫০০ একর জমিতে ৬৪১ মেগাওয়াট সবুজ বিদ্যুৎ পাওয়া গেলে রামপালের ১৮০০ একর জমিতে কতটুকু সবুজ বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে?

ভারতের তামিলনাড়ুতে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সৌরবিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে ২৫০০ একর জমিতে। উৎপাদন ক্ষমতা ৬৪১ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। আর সেই ভারতই বাংলাদেশে সুন্দরবন ধ্বংশ করে স্থাপন করছে কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র।

বিশ্বব্যাপী এনার্জি সেক্টরে দুর্নীতিটা সহজ করে দিচ্ছি। অনেক দেশের কাছেই বিপুল পরিমান কয়লা এবং তেলের মজুত আছে। এখন হঠাৎ করে যদি অন্য কোন পরিবেশবান্ধব ও সুলভ জ্বালানী উৎস পাওয়া যায়, তাহলে তাদের ফসিল ফুয়েলের এই বিপুল মজুদের দাম শূন্য হয়ে যাবে। তাই ফসিল ফুয়েল কোম্পানীগুলো বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার ঘুষ বাবদ খরচ করে, যেন বিকল্প জ্বালানী দিয়ে এনার্জি উৎপাদনের গবেষণা বন্ধ থাকে। পাশাপাশি তাদের এই ফসিল ফুয়েলগুলোর সদগতি করতে তারা তৃতীয় বিশ্বের স্বৈরাচারী সরকারদের ঘুষ দেয়, যাতে করে তারা কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করে।

ভারতের রাণীগঞ্জের নিম্নমানের কয়লার সদগতি করতে সেই দেশে কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের অনুমতি পাওয়া যায় না, শ্রীলঙ্কা ভারতের কয়লাবিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্প বাতিল করে দেয়, আর সেইসব বাতিল কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর স্থান হয় বাংলাদেশে!



সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: