9.23.2016

উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ করতে না পারায় মেরে শিশু ছাত্রীর হাত ভেঙ্গে দিয়েছে এক হিন্দু শিক্ষক


দেশজুড়ে হিন্দুদের জঙ্গীপনা অব্যাহতঃ দিনাজপুরে উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ করতে না পারায় মেরে শিশু ছাত্রীর হাত ভেঙ্গে দিয়েছে এক হিন্দু শিক্ষকদিনাজপুরে বীরগঞ্জে এক হিন্দু শিক্ষককের বিরুদ্ধে মেধাবী ছাত্রীকে মেরে হাত ভেঙে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপবৃত্তির টাকা থেকে ঐ হিন্দু শিক্ষককে ২০০ টাকা না দেয়ায় ওই ছাত্রীকে মারধর করেছে বলে জানা গেছে। ছাত্রীটির মা মর্জিনা বেগম এক লিখিত অভিযোগে জানান, তার মেয়ে রিপা আক্তার গড়পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী, তার রোল নং-১। তার উপবৃত্তির টাকা থেকে প্রতি বিলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবীন্দ্র নাথ সেন ২০০ টাকা কেটে নিয়ে পকেটস্থ করতো। সম্প্রতি রিপার উপবৃত্তি উত্তোলনের সময় ঐ হিন্দু প্রধান শিক্ষক একই গ্রামের আনোয়ারাকে ডুপলিকেট মা সাজিয়ে টাকা উত্তোলনের চেষ্টা চালায়। সংবাদ পেয়ে রিপার মা ডাকেশ্বরী স্কুল কেন্দ্রে টাকা প্রদানের সময় হাতেনাতে ধরে উপবৃত্তির টাকা উদ্ধার করেন। অবৈধভাবে উপবৃত্তির টাকা আদায়ের চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে ওই প্রধান শিক্ষক বাড়িতে এসে রিপাকে স্কুলে যেতে নিষেধ করেন।

নিয়মিত ছাত্রী রিপাকে পরদিন স্কুলে দেখে ক্ষিপ্ত প্রধান শিক্ষক তাকে মারধর করেন। এক পর্যায়ে স্কুলের দেয়ালে ধাক্কা দিলে সে পড়ে গেলে তার ডান হাত ভেঙে যায়। সংবাদটি ছড়িয়ে পড়লে অভিভাবক মহলসহ শত শত গ্রামবাসী উত্তেজিত হয়ে স্কুল ঘেরাও ও প্রধান শিক্ষককে অবরুদ্ধ করে। খবর পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান মো. রেজাউল করিম শেখ ন্যায়বিচারের আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। দীর্ঘ ২৫ দিন পেরিয়ে গেলেও বিষয়টি সুরাহা না হওয়ায় রোববার বীরগঞ্জ থানা ক্যাম্পাসে দিনাজপুরের পুলিশ সুপার মো. হামিদুল আলম আইনশৃংখলা মিটিং করতে এলে তার কাছে অভিযোগ করা হয়। এ সময় ইউএনও মো. আলম হোসেন উপস্থিত ছিলেন। তিনি বিষয়টি দেখবেন বলে আশ্বস্ত করেন। আহত রিপা আকতার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।


খবরের সূত্রঃ http://www.jugantor.com/bangla-face/2016/09/21/61945/print


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: