9.24.2016

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলায় ১৯ টি বিদ্যালয়ে ইসলাম ধর্ম পড়াচ্ছেন হিন্দু শিক্ষক কিন্তু কেনো?

দৈনিক মানবজমিনে গতপরশু একটা ভয়ঙ্কর খবর এসেছে যেখানে বলা হয়েছেঃ মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে মুসলমান শিক্ষকের মারাত্মক অভাব।

১৩৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষক ৫৪৬ জন এর মধ্যে হিন্দু শিক্ষক ৩৮৭ জন মানে ৭০% এবং মুসলিম শিক্ষক ১৫৯ জন, মানে ২৯% এর মধ্যে ১৯টি বিদ্যালয়ে কোন মুসলিম শিক্ষক নেই, এমনকি সেখানে ক্লাসে ইসলাম ধর্ম পর্যন্ত পড়াচ্ছে হিন্দু শিক্ষক।

অনেকে ভাবতে পারবেন, ঐ এলাকাটি মনে হয় হিন্দু অধ্যুষিত। আসলে তা নয়। সেখানে মুসলিম শিক্ষার্থী সংখ্যা গড়ে প্রায় ৬৫% এবং অনেক বিদ্যালয়ে মুসলিম ছাত্র-ছাত্রী সংখ্যা ৮৭%। এরপরও মুসলিম শিক্ষক নাই।

(খবরের সূত্র- http://bit.ly/2cvQAd9)

এর কারণ হিসেবে অবশ্য দায়িত্বশীলরা দাবি করেছে মুসলিমরা সেখানে চাকুরী করছে না। কিন্তু এটা আমি মানতে পারলাম না। কারণ বর্তমানে বাংলাদেশে বেকারত্বের হার এত বেশি, সরকারি চাকুরী পেলে মুসলিমরা আসবে না, এটা মেনে নেয়া যায় না। বরং মৌলভীবাজার জেলায় প্রশাসনে কোন হিন্দুত্ববাদী লুকিয়ে লুকিয়ে আড়াল থেকে সেখানে হিন্দুদের একত্র করছে।

উল্লেখ্য এর আগে আমি পোস্ট দিয়েছিলাম (https://goo.gl/xYQVPu) মৌলভীবাজার জেলায় ইপিআই পদে ১০০% হিন্দু নিয়োগ দেয়া হয়েছে, কোন মুসলিম নিয়োগ দেয়া হয়নি। আরো উল্লেখ্য বাংলাদেশের প্রধানবিচারপতির বাসা হচ্ছে মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলে এবং আরো জানা প্রয়োজন মৌলভীবাজারে ইসকনের বিরাট কর্মকাণ্ড রয়েছে, যেখানে সংগঠনটি চাবাগানে কর্মরত নিচু শ্রেণীর হিন্দুদের সন্ত্রাসীমূলক কাজের জন্য সুসংগঠিত করছে। এছাড়া শ্রীমঙ্গল থেকে অনেকেই জানিয়েছে ভারতের ত্রিপুরা থেকে উপজাতি হিন্দু দলে দলে বাংলাদেশে প্রবেশ করে সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেছে।

আমি জানি বাংলাদেশের মুসলমানরা এ বিষয়গুলো খুব হালকাভাবে দেখে। কিন্তু এটা মনে রাখবেন গাছের যখন মাথা বের হয় তখন তার শিকড় ভেতরে বহুশাখা বিস্তার করে। হয়ত বিভিন্ন সূত্র মারফত মাত্র ১% ঘটনা আপনাদের সামনে এসেছে, কিন্তু সূত্রের অভাবে কারণে একই ধরনের আরো ৯৯% আপনাদের চক্ষুর আড়ালে রয়েছে। মুসলমানরা একত্র হয়ে বিষয়টির যদি দ্রুত প্রতিবাদ না করে তবে বাংলাদেশের মুসলমানদের জন্য কিন্তু কঠিন সময় অপেক্ষা করছে।


বিঃদ্রঃ বাংলাদেশের হিন্দুরা মুসলমানদের নিপীড়ন করছে এমন যে কোন তথ্য পেলে তা আমার ইনবক্সে দ্রুত জানান (প্রমাণসহকারে হলে খুব ভালো হয়)। আমি অবশ্যই সেই তথ্য আমার পেইজে অবশ্যই প্রকাশ করবো।


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: