9.19.2016

সিলেটে মুক্তিযোদ্ধাদের নামে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ ভূয়া হিন্দু মুক্তিযোদ্ধা জুয়েলের


মুক্তিযোদ্ধাদের নাম ভাঙিয়ে কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা দায়েরের পর আত্মগোপন করেছেন সিলেট জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল। তাকে গ্রেফতারে বাসায়ও অভিযান চালিয়েছে দুদক। দুদক কার্যালয়ে তলব করা হলেও তিনি হাজির হননি। তার বিরুদ্ধে দুদক আইন ২০০৪-এর ১৯(৩) ধারায় মামলা দায়েরের পর গ্রেফতার এড়াতে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। হাজির হচ্ছেন না আদালতেও।

দুদকের মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, রিকশার প্লেটের ভাড়া বাবদ ৩ কোটি ৫২ লাখ ৮০ হাজার টাকা, সিলেট মুক্তিযোদ্ধা প্রকল্পের ১৪ লাখ টাকা, তথ্য মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ দেয়া ১৩টি কম্পিউটার ও কোরবানির ঈদে কয়েদির মাঠ ইজারার টাকা আত্মসাৎ করেছেন সুব্রত চক্রবর্তী। এ বিষয়ে অভিযোগ উঠলে তাকে দুদকে তলব করা হয়। এ ব্যাপারে তার বক্তব্য চাওয়া হলে তিনি কোনো বক্তব্য ও হিসাব-নিকাশ না দিয়ে আত্মগোপন করেন। এরপর তাকে গ্রেফতারে ৭ সেপ্টেম্বর রাতে নগরীর চালিবন্দরের সমতা-৫ বাসায় অভিযান চালায় দুদক। তবে সেদিন তাকে পেয়েও রহস্যজনক কারণে গ্রেফতার করা হয়নি। এ নিয়ে নানা গুঞ্জন চলছে মুক্তিযোদ্ধাদের মুখে। এদিকে দুস্থ মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নাম ভাঙিয়ে কোটি কোটি টাকা লুটপাটের অভিযোগের অনুসন্ধান করতে গিয়ে আরও অনেক অভিযোগ পাওয়া গেছে। মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ২০০৭ সালে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে দুস্থ মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণের নামে ১ হাজার ৭০০টি রিকশার প্লেট বরাদ্দ নেন সুব্রত চক্রবর্তী। সিলেট সিটি কর্পোরেশন থেকে রিকশার প্লেট বরাদ্দ নেয়ার পর ৫০০ মুক্তিযোদ্ধার মধ্যে ২টি করে এক হাজার রিকশার প্লেট বিতরণ করেন। বাকি ৭০০ মুক্তিযোদ্ধা প্রকল্প ও সিলেট ফাউন্ডেশনের নামে নেন তিনি। এসব রিকশার প্লেটের ভাড়া বাবদ আয় হওয়া ৩ কোটি ৫২ লাখ ৮০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেন তিনি। বিস্তারিত

এই সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েলকে নিয়ে কিছুদিন আগে একটা লেখা লিখেছিলাম আমি। লেখাটার শিরোনাম ছিলো - মুক্তিযুদ্ধই করেনি সিলেট মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শ্রী সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল !’ (লিঙ্কঃ- http://www.rajibkhaja.com/2016/09/fake-freedom-fighter-hindhu-jewel.html)

আজকে খবর এসেছে গরীব মুক্তিযোদ্ধাদের ফান্ড আত্মসাতের মামলায় এখন পলাতক রয়েছে সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল। (http://www.jugantor.com/last-page/2016/09/19/61312/print)

মজার ব্যাপার কি জানেন ?

এই সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েলের রেফারেন্স দিয়েই এতদিন পত্র-পত্রিকাগুলো রাগীব আলীর বিরুদ্ধে রিপোর্ট করছিলো। দেখতে পারেন-

যুগান্তর- https://goo.gl/4YblGS
সিলেটভিউ- https://goo.gl/dRx4b4
সিলেটটুডে২৪- https://goo.gl/m2630X
বাংলাদেশ প্রতিদিন - https://goo.gl/PZVumJ


চোরের সাক্ষী মাতাল। যেই রাগীব আলী এতদিন মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য এতকিছু করলো, সেই রাগীব আলীকে রাজাকার প্রমাণের জন্য সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েলের মত এক ভুয়া জোচ্চুর ব্যক্তিকে নিয়ে আসলো মিডিয়া। কিন্তু অবশেষে সেই গোমর হলো ফাস বাহ বাহ দেখ কতো এগিয়ে যাচ্ছে আমি কল্পনাও করতে পারছিনা..


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: