10.04.2016

হায়রে মুসলিম জাতি, বৌদ্ধরা বুঝলো, আর তোরা বুঝলি না আফসোস আফসোস

বৌদ্ধরাও বুঝে, হিন্দুদের পূজা করার সুযোগ দিলে তারা বৌদ্ধদের ধর্ম নষ্ট করবে। কারণ বৌদ্ধরা ইতিহাস থেকে শিক্ষা নেয়, যেখানে পাওয়া যায় বিদেশ থেকে আগত হিন্দুরা এ অঞ্চলের বৌদ্ধদের উপর গণহত্যা চালিয়ে তাদের নিঃশেষ করেছিলো। তাই হিন্দুদেরকে তারা কোনভাবেই সুযোগ দিতে চায় না। সম্প্রতি বৌদ্ধবিহারে দূর্গা পূজা বন্ধ করতে দেশব্যাপী আন্দোলন করে বৌদ্ধরা। ব্যানারে লেখা থাকেঃ

১) বৌদ্ধ বিহার প্রাঙ্গনে দূর্গা পূজা বন্ধ করুন। বৌদ্ধ মন্দিরকে কলুষিত করবেন না।বৌদ্ধরাও জানে গোবর-চনা দিয়ে পূজা করার মাধ্যমে বিহার কলুষিত বা দূষিত হয়।

২) ধর্ম যার যার, বিহার মন্দির তার তার” - দুই ধর্মের উৎসব এক হতে পারে না, এটাই যথেষ্ট।

৩) দূর্গা পূজাকে না বলি, বিহারের পবিত্রতা রক্ষা করি”- পতিতালয়ের মাটি দিয়ে বানানো দূর্গা মূর্তিকে পূজা করলে যে বৌদ্ধ বিহার অপবিত্র হয় এটা বৌদ্ধরাও বুঝে।

সারাদেশব্যাপী বৌদ্ধদের আন্দোলনের পর বৌদ্ধমন্দিরে দূর্গা পূজা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয় হিন্দুরা।


বলাবাহুল্য বৌদ্ধ ও হিন্দু উভয় ধর্মেই মূর্তি পূজা আছে। দুই ধর্মের ধর্মীয়গ্রন্থগুলোতে উল্লেখ্য দেবতাদের নামও প্রায় এক। কিন্তু তারপরও বৌদ্ধরা সুযোগ দিতে নারাজ। অথচ ইসলাম ধর্মের মূল তত্ত্বের (তৌহিদ) সাথে মূর্তি পূজা ১০০% সাংঘর্ষিক। তারপরও অসাম্প্রদায়িকতার কথা বলে মুসলমানদের ঘরের মধ্যে পূজা নিয়ে আসা হচ্ছে। স্কুল কলেজ ভার্সিটিতে পূজা করা হচ্ছে, একটি দুইটি নয় ৩০ হাজার মণ্ডপ বানিয়ে মুসলমানদের ধর্ম নষ্ট করা হচ্ছে। মসজিদের দেশ বাংলাদেশকে মূর্তির দেশ বাংলাদেশ বানানো হচ্ছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে বন্ধ করে মুসলমানদের দিয়ে পূজা করানো হচ্ছে। হায়রে মুসলিম জাতি, বৌদ্ধরা বুঝলো, আর তোরা বুঝলি না।







সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: