10.02.2016

মুসলমানদের উচিত দুর্গাপূজা উপলক্ষে রিলিজ পাওয়া ইসলামবিদ্বেষী জুলফিকার ছবির বিরধিতা করা


প্রথমে আমার এই নামেই আপত্তি। কারণ জুলফিকার শব্দটা আমাদের মুসলমানদের একটি বিশেষ ধর্মীয় শব্দ। আমাদের প্রানের আক্বা শেষ নবী বদর যুদ্ধে বিশেষ বিরত্বের জন্য হযরত আলী ইবনে আবু তালিব আলাইহিস সালাম উনাকে যে তরবারি উপহার দিয়েছিলেন সেই তারবারির নাম হলো জুলফিকার। মুসলমানদের ঈদ উপলক্ষে যদি এমন কোন সিনেমা রিলিজ হতো, যার নাম হতো কৃষ্ণের সাথে ১৬শগোপিনীর লীলা’, অথবা ব্রহ্মার সাথে নিজ কন্যার অবৈধ সম্পর্কটাইপের হতো তবে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা নিশ্চয়ই ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার দরুন অবজেকশন জানাতো, ঠিক তেমনি মুসলমানদের ধর্মীয় শব্দ ব্যবহার করে পূজায় সিনেমা বানানোতেও মুসলমানদের আপত্তি জানানোটাই স্বাভাবিক।

সিনেমার মূল থিম মুসলমানরা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত। ট্রেইলারে দেখবেন- একটি অংশে বলা হচ্ছে-তারা টেরোরিস্ট নয়, তারা জিহাদী। পশ্চিমবঙ্গের অনেক মুসলিম অধ্যুষিত গ্রাম অনুন্নত ও অবহেলিত, সেই সব গ্রামের নাম উল্লেখ করে উস্কানি দেয়া হচ্ছে দাঙ্গা লাগনোর জন্য। দাড়ি-টুপি পড়ে ছুরি-বন্দুক নিয়ে মুসলমানরা গোলাগুলি আর দাঙ্গা করছে এই হচ্ছে পুরো সিনেমার দৃশ্য।

যাই হোক, সিনেমাটি নিয়ে ইতিমধ্যে পশ্চিমবঙ্গের মুসলমানরা অবজেকশন জানিয়েছে। মুসলমানদের মধ্যে কয়েকটি সংগঠন সিনেমাটির বিরুদ্ধে মামলাও করতে গিয়েছিলেন। কিন্তু সিনেমার পরিচালক সৃজিত মুখার্জী বলেছে- মামলা করার দরকার নাই, সে সিনেমার কিছু আপত্তিকর অংশ কেটে দিবে। পরিচালকের কথায় ভুলে মুসলমানরা পিছু হটেছে, এবং মামলা করা থেকে বিরত থেকেছে। (http://bit.ly/2dJznvO)

আমি প্রথমেই বলেছি, সিনেমার নামেই হচ্ছে আপত্তি, এছাড়া সৃজিত মুখার্জীর কাটছাটের দ্বারা প্রমাণ পায় সে উদ্দেশ্যমূলকভাবেই সাম্প্রদায়িক উস্কানি ঢুকিয়েছিলো সিনেমার মধ্যে। তবে মূল কথা হচ্ছে, সিনেমার মূল থিমই এন্টি ইসলামীক। সামান্য একটু কাটছাট করলেও পুরো সিনেমার ভাবধারা তো সংখ্যালঘু মুসলমানদের বিরুদ্ধেই যাচ্ছে। এ মুভির রিলিজের পর পশ্চিমবঙ্গে নিরীহ মুসলমানদের বিরুদ্ধে দাঙ্গা হওয়াটা স্বাভাবিক।

আমি পূজা উপলক্ষে এ ধরনের জঘন্য এন্টিইসলামিক, দাঙ্গায় উস্কানিমূলক, মুভি বন্ধ করার দাবি জানাচ্ছি, শুধু কাটছাট করে নয় পুরো মুভি বন্ধ করে দেয়া হোক। আমি পশ্চিমবঙ্গের মুসলমানদের আহবান জানাবো, আপনারা যদি পশ্চিমবঙ্গে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে চান, তবে অবিলম্বে মুভিটি বন্ধ করুন, মুভিটি যেন কিছুতেই মুক্তি না পায়। আর মামলা করার কাজ বন্ধ রাখবেন না, অবশ্যই অবশ্যই উগ্র সাম্প্রদায়িক সৃজিতের বিরুদ্ধে মামলার করুন। আর বাংলাদেশী মুসলমানরা মুভিটির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ অব্যাহত রাখুন, কলকাতার মুসলমানদের সার্পোপ দিন। অনলাইনে জোর দাবি তুলুন, প্রয়োজনে ইভেন্ট খুলে, হ্যাশ ট্যাগ দিন। যে কোন উপায়ে বন্ধ করতে হবে মুসলিমবিদ্বেষী মুভি জুলফিকার


মুভির ট্রেইলার লিঙ্কঃ https://www.youtube.com/watch?v=4OdOORa-7zI 


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: