3.28.2017

লন্ডনে হামলাকারী খালিদ মাসুদ প্রাক্তন উগ্র খ্রিষ্টান ছিলো কখনোই 'সঠিক' মুসলমান ছিলো না

যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টের সামনে হামলার জন্য অভিযুক্ত ধর্মান্তরিত খালিদ মাসুদ কখনোই 'সঠিক' মুসলমান ছিলো না। পূর্ব সাসেক্সে খালিদকে বাড়ি ভাড়া দিয়েছিলেন এমন এক নারী এ দাবি করেছেন। ক্যাসি হ্যাভার্ড নামের ওই নারী জানান, খালিদ পতিতাদের সঙ্গে যৌনকর্ম করতো, কোকেন সেবন করতো এবং মানুষকে ছুরি মেরে জখম করতো।

৫২ বছর বয়সী খালিদ মাসুদ ১৯৬৪ সালে ইংল্যান্ডের কেন্টের ডার্টফোর্ডে এক খ্রিস্টান পরিবারে জন্ম নেয়। শৈশবের তার নাম আড্রিয়ান ইলমস রাখা হয়। তারা মা জেনেট ইলমস শ্বেতাঙ্গ ব্রিটিশ এবং বাবা ফিলিপ আজাও কৃষ্ণাঙ্গ ছিলো।

আড্রিয়ান ২০০৩ সালে ৩৮ বছরে বয়সে ধর্মান্তরিত হয়ে ইসলামে দাখিল হয়। এর দুবছর পর সে নিজের নাম রাখে খালিদ মাসুদ। গত ২২ মার্চ লন্ডনের ওয়েস্টমিনস্টার সেতু এবং সংলগ্ন যুক্তরাজ্য পার্লামেন্টের সামনে হামলা চালায় সে।

লন্ডনের মেট্রোপলিটন পুলিশ জানিয়েছে, মাত্র ৮২ সেকেন্ডের এ হামলায় মাসুদের হাতে চারজন নিহত এবং প্রায় ৫০ জন আহত হয়। পরে পুলিশের গুলিতে সেও নিহত হয়।

এক ব্যক্তিকে ছুরিকাঘাত করার দায়ে খালিদ প্রথমবার জেলে যায় ১৯৮৩ সালের নভেম্বরে। এরপর ২০০৩ সালের ডিসেম্বরে ছুরি বহনের অভিযোগে দ্বিতীয় দফায় জেলে যায় সে। ওই সময় কারাগারে ধর্মান্তরিত হয়ে সে মুসলিম হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তবে সাবেক বাড়িওয়ালী ক্যাসি হ্যাভার্ডেরে মতে, খালিদ যথার্থ মুসলমান ছিলো না। সে পতিতা ও মাদকে আসক্ত ছিলো আর পতিতা এবং মাদকে কেউ আসক্ত হলে অটো সে ইসলাম থেকে বাহির হয়ে যায়।

খালিদ উন্মাদ ছিলো জানিয়ে সেই মহিলা বলেন, একবার এক মাদকাসক্ত বন্ধুর সঙ্গে চার দিন ধরে সময় কাটানোর এক পর্যায়ে সে উন্মত্ত হয়ে পড়ে। ওই বন্ধুকে ছদ্মবেশী পুলিশ বলে অভিযুক্ত করে সে। এরপর আড্রিয়ান পুরোপুরি হিংস্র হয়ে রান্না ঘর থেকে একটি বড় ধরনের ছুরি নিয়ে আসে। এরপর রুমে ফিরে ওই বন্ধুর চেহারায় কয়েকবার আঘাত করে।

তখন ৪৩ বছরের খালিদকে তারা ওই বাড়ি থেকে বের করে দেন। খালিদের আরেক বন্ধু জানায়, সে কোকেনসহ বিভিন্ন মাদক গ্রহণ করতো। আরেক জন বলে, সে ফ্রান্সে নৌকা চুরি করতো এবং মাছ ধরার জাল লাইসেন্স বিক্রি করতো।

সুতরাং এইখানে ইসলাম কে দোষারোপ করার কিছুই নাই কারন কেউ নিজেকে মুসলমান দাবি করলো অথচ সে কুরআন সুন্নাহর বিপরিতে চলাফেরা করলো আর নিজেকে মুসলিম বলে দাবি করলো মানে পাগলামি করলো।


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: