3.06.2017

পাঠ্যপুস্তকে পরিবর্তন এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিটকারি এবং এক্সেপ্টকারি উভয়েই গাধা

পাঠ্যপুস্তকে পরিবর্তন এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিটকারি এবং এক্সেপ্টকারি উভয়েই গাধা

খবরে দেখলাম একদল গাধা পাঠ্যপুস্তকে পরিবর্তনের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করেছে, আর সেই রিট কে একদল গাধা বিচারক এক্সেপ্ট ও করেছে। সেই রিট দায়েরকারীরা হলো - মমতাজ জাহান ও ড. এম আনোয়ার হোসেন (কর্নেল তাহেরের ভাই) আর যারা রিট এক্সসেপ্ট করেছে তারা হলোঃ- বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি আবু তাহের। রিটের পক্ষের আইনজীবি- রোকনউদ্দিন মাহমুদ, সৈয়দ মামুন মাহবুব ও মোস্তাফিজুর রহমান খান

১) বাংলানিউজ২৪ এর সংবাদে (http://bit.ly/2lNC8yG) এসেছে- রিটকারী আইনজীবি মামুন মাহবুব বলে, পাঠ্যপুস্তক থেকে সুপরিচিত, স্বনামধন্য, প্রতিথযশা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারীদের লেখা বাদ দেওয়া হয়েছেএখানে সাম্প্রদায়িকীকরণ ও পাকিস্তানের দিকে ঠেলে দেওয়ার একটা প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছেযেমন এখানে গোলাম মোস্তফা, হুমায়ন আজাদ, শরৎচন্দ্র, রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর লেখা বাদ দেওয়া হয়েছেযখন মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার দেশ চালাচ্ছে তখন এটা কিসের ষড়যন্ত্রএ কারণে রিট আবেদন করা হয়েছে

অথছ হাক্বিকত হচ্ছেঃ গোলাম মোস্তফার লেখা বাদ দেয়া হয় নাইরুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লাহর লেখাও বাদ দেওয়াও হয় নাইশরৎচন্দ্র ও হুমায়ুন আজাদের অনেকগুলো লেখা পাঠ্যবইয়ে আছে, একটা শুধু পরিবর্তণ করা হয়েছে, বাকিগুলো ঠিক আছে

২) বাংলানিউজ২৪ এর সংবাদ- রিট আবেদনে বলা হয়, ২০১৩ সালে প্রথম শ্রেণী থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত শ্রেণীতে সুপরিচিত লেখকদের লেখা অন্তর্ভুক্ত করা হয়যাতে অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক, সামাজিক, মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন এবং নৈতিক মূল্যবোধ সম্পন্ন লেখা অন্তর্ভুক্ত হয়এছাড়াও যেখানে সব ধর্মের স্বনামধন্য লেখকের লেখা ছিলোকিন্তু গত বছরের ৮ এপ্রিল হেফাজতে ইসলামের দেওয়া একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে প্রথম থেকে নবম শ্রেণী পর্যন্ত ক্লাসে ১২টি বিষয় বাদ দিতে বলা হয়যার মধ্যে হুমায়ুন আজাদসহ বিশিষ্ট লেখক রয়েছেন

অথছ হাক্বিকত হচ্ছেঃ
ক) ২০১৩ সালের পাঠ্যপুস্তককে অসাম্প্রদায়িক লেখা ছিলো !!
-হিন্দুদের দেবী অন্নপূন্নার প্রশংসা, দেবী দূর্গার প্রশংসা, রামায়ন, রাধাকৃষ্ণের লীলা খেলা, এগুলো কি অসাম্প্রদায়িক লেখা?? ৯৫% মুসলমানের সন্তান কি কুফুরি আর শিরক শিখবে?
খ) ২০১৩ সালের পাঠ্যপুস্তককে গণতান্ত্রিক লেখা ছিলো !!
-৯৫% মুসলমানের ধর্মকে (শেষ নবী রাসুলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও উনার সাহাবায়ে কেরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনাদের জীবনী) বাদ দিয়ে ২-৩% হিন্দুর হিন্দুত্ববাদকে পাঠ্যপুস্তকে প্রমোট করা গণতান্ত্রিক সিস্টেম??
গ) সামাজিক-মানবিক-নৈতিক মূল্যবোধ সম্পন্ন লেখা ছিলো !!
-মামী রাধা ও ভাগিনা কৃষ্ণের লীলা(সহবাস) খেলা এবং বাউল লালনের বিকৃত যৌনাচারসূচক কবিতা সময় গেলে সাধন হবে না’, পাঠাবলীর উৎকট নিয়ম এগুলো কি ধরণের সামাজিক-মানবিক ও নৈতিকতা সম্পন্ন লেখা??
৩) বাংলানিউজ২৪ এর সংবাদ- ২০১৭ সালে এসে এনসিটিবি হেফাজতে ইসলামের দাবি অনুযায়ী অনেক বিষয় বাদ দিয়ে এবং হেফাজতের আবেদন মতো বিষয় যুক্ত করেএর মধ্যে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরীসহ বিখ্যাতদের লেখা বাদ দেওয়া হয়অথচ তদের লেখা পাঠ্যপুস্তকে পাকিস্তান আমলে ছিলো

অথছ হাক্বিকত হচ্ছেঃ পাঠক! খেয়াল করুন, প্রথম পয়েন্টে বলছে- এই লেখাগুলো বাদ দিয়ে বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানানোর ষড়যন্ত্র করা হচ্ছেঅথচ ৩ নং পয়েন্টে এসে বলছে শরৎচন্দ্র-উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরীর লেখা পাকিস্তান আমলে ছিলো তাহলে তার মানে দাড়ালো ১নং আর ৩ নং পয়েন্ট পরষ্পর পরষ্পরের বিরোধীবরং এই গল্প-কবিতায় পরিবর্তন এনে বাংলাদেশকে পাকিস্তানের হাওয়া থেকে বিরত রাখা হয়েছে

সবশেষে বলবো- যারা রিট আবেদন করেছে, যারা রিট আবেদনের পক্ষের আইনজীবি এবং যেসব বিচারক রিট এক্সসেপ্ট করেছে তাদের প্রত্যেককে গলায় জুতার মালা পরিয়ে কোর্ট চত্বরে ১০ বার করে ঘোরানো হোক, তারা কেন না জেনে এই রিটের সাথে জড়িত থাকলোআর শাস্তি শেষে অযোগ্য গাধার বাচ্চাগুলো যেনো নয়ন চ্যাটার্জির পাঠ্যপুস্তক নিয়ে করা দলিল ভিত্তিক এই (http://bit.ly/2mLcXSl) লেখাটি পড়ে নেয়


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: