3.05.2017

ইসলাম বিদ্বেষী উগ্র হিন্দু ভাইবোন চাচ্ছে মূর্তি ও মঙ্গলশোভাযাত্রা নামক শিরকের বাংলাদেশ গড়তে সাথে হিজাবমুক্ত মুসলিম ম বোন

ইসলামবিদ্বেষী দুই উগ্র হিন্দু ভাইবোন চাচ্ছে হিজাবমুক্ত এবং মূর্তি ও মঙ্গলশোভাযাত্রা করাতে বাংলার মুসলমানদের
ইসলাম বিদ্বেষী দুই উগ্র হিন্দু ভাইবোন চাচ্ছে হিজাবমুক্ত এবং মূর্তি ও মঙ্গলশোভাযাত্রা করাতে বাংলার মুসলমানদের অথচ আমরা মুসলমানরা প্রতিবাদের বদলে উল্টো নাকে সরিষার তেল লাগিয়ে ঘুমাচ্ছি আর মরার সাথে সাথেই জান্নাতুল ফেরদৌসে যায়গা পাবো এমন ধারনা নিয়ে বসে আছি। যাইহোক আসুন তাদের বক্তব্যগুলো দেখিঃ

(১) একুশে টিভির অঞ্জন রায় প্রথম স্ট্যাটাসে বলছে- উচ্চ আদালতে গ্রিক দেবীর মূর্তি থাকবে এবং মঙ্গলশোভাযাত্রাও হবেকারণ মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন হয়েছিলোযদিও গ্রিক ধর্ম প্রতিষ্ঠার জন্য মুক্তিযুদ্ধ হয়নিঅন্যদিকে মঙ্গলশোভাযাত্রার সৃষ্টি হয় মুক্তিযুদ্ধের ১৮ বছর পর ১৯৮৯ সালে স্বৈরাচারি এরশাদ আমলে, যার সাথে মুক্তিযুদ্ধের বিন্দুমাত্র সম্পর্ক নাইমুক্তিযুদ্ধের ঘোষণাপত্রে কোথাও উল্লেখ নাই- বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিলো মঙ্গলশোভাযাত্রা প্রতিষ্ঠার জন্যকিন্তু তারপরও একুশে টিভির অঞ্জন রায় গ্রিক দেবীর মূর্তির-মঙ্গলশোভাযাত্রাকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নিয়ে এসেছে, কারণ গ্রিক দেবীর মূর্তি ও মঙ্গলশোভাযাত্রা উভয় ইসলামের সাথে সাংঘর্ষিকতারমানে একুশে টিভির অঞ্জন রায়ের মতে ইসলাম ও মুক্তিযুদ্ধ পারষ্পরিক সাংঘর্ষিকতার মতে- ইসলামকে তুলে দেয়ার জন্যই মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিলো ! সুত্রঃ [http://archive.is/omaXl]

(২) দ্বিতীয় স্ট্যাটাসওটা অঞ্জন রায়ের দেয়াতারিখ ২৮শে মার্চ ২০১৬, ঐ দিন রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাতিল চেয়ে একটি রিট খারিজ করে দেয় হাইকোর্টঐ স্ট্যাটাসে সে বলতে চেয়েছে- রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম হবে জানলে তার বাবা মুক্তিযুদ্ধ করে ভুল করেছিলো, চাচা নিহত হয়ে ভুল করেছিলোতারমানে এই স্ট্যাটাসেও প্রমাণ হয়- মুক্তিযুদ্ধ ও ইসলাম পরষ্পর বিরোধী এবং ইসলামকে তুলে দেয়ার জন্যই মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিলো বলে দাবি করছে অঞ্জন রায়।( উল্লেখ্য মুক্তিযুদ্ধের শুরুতেই অঞ্জনের বাবা প্রসাদ ভারতে পালিয়ে যায়, মাঠে গেরিলা যুদ্ধ না করেও পরবর্তিতে ধারণ করে মুক্তিযোদ্ধা খেতাববৃদ্ধ চাচা জয়ন্ত রায়কে ভাই প্রসাদ ভারতে পালাতে সাহায্য না করায় মারা পড়ে)

(৩) তৃতীয় স্ট্যাটাসটা অঞ্জনের আপন বোন বৃত্বা রায় দীপারসে স্পষ্ট স্ট্যাটাস দিয়ে বলছে- হিজাবমুক্ত বাংলাদেশ চাই, সর্বত্র হিজাব সংষ্কৃতি বন্ধ হোকভাইয়ের মত বোনও একই পথে পা বাড়িয়েছেডাইরেক্ট ইসলামী সংস্কৃতির বিরুদ্ধে বলছেতারমানে সেও বুঝাতে চাইছে বাংলাদেশ থেকে ইসলাম নিঃশেষ হোক

কি সুন্দর! মুক্তিযুদ্ধের অজুহাত দিয়ে পবিত্র দ্বীন ইসলামকে বাংলাদেশ থেকে তুলে দিতে চাইছে এই ইসলাম বিদ্বেষীরাএকদম প্রকাশ্য কথা, লুকোচুরি নাইঅঞ্জনের বাবা প্রসাদ রায় সম্পর্কে শুনেছিলাম- সে বামরাজনীতি করতো, নামের আগে কমরেড লাগাতো, কিন্তু ঘরে পূজা-পার্বন একটাও বাদ দিতো নাতারমানে অসম্প্রদায়িকতার আড়ালে হিন্দুত্বঅঞ্জন বা দিপাও কিন্তু একই পথেমুখে অসাম্প্রদায়িকতার কথা বলে ইসলাম তুলতে বলছে, কিন্তু ভেতরে ভেতরে চাইছে হিন্দুদের মূর্তি আর মঙ্গলশোভাযাত্রা, মানে হিন্দুত্ববাদ

এদেশের ৯৫% মুসলমান কি এখন শিরিক আর কুফুরের পথে হাটবেন? ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা কি মূর্তিপূজা করার জন্য মা বোনদের বেপর্দা হওয়ার জন্যে মুক্তিযুদ্ধ করেছিলেন? মুসলমানেরা উত্তর দিন?

আর অঞ্জনকে আমি প্রশ্ন করবো-
১) মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণাপত্রে কোথায় উল্লেখ ছিলো- ইসলাম বাদ দিয়ে হিন্দুত্ববাদ জারি করার জন্য মুক্তিযুদ্ধ করা হয়েছে?
২) বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে কত পার্সেন্ট হিন্দু ছিলো এবং আছে?
৩) মুক্তিযুদ্ধের সময় ১ কোটি লোক ভারতে আশ্রয় নিয়েছিলোএর মধ্যে ৯৮% ছিলো হিন্দু। আবার ঐ সময় বাংলাদেশে হিন্দু জনসংখ্যাও ছিলো ১ কোটি। তাহলে কি হিন্দুরা ভারতে পালিয়ে মুক্তিযুদ্ধের কান্ডারী হয়েছিলো?

দেখি অঞ্জন উত্তর দিতে পারি কি না


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: