3.18.2017

হোলি পূজায় গ্রেফতারকৃত ৩ তরুণকে নিয়ে পুলিশ বিভ্রান্তিকর খবর প্রচার করেছে

হোলি পূজায় গ্রেফতারকৃত ৩ তরুণকে নিয়ে পুলিশ বিভ্রান্তিকর খবর প্রচার করেছে। এ দ্বারা প্রমাণ হয়, এত বড় একটা ঘটনায় প্রকৃত অপরাধীকে আড়াল করেছে পুলিশ।

প্রথম খবরটা দেখি, যা প্রকাশিত জাগোনিউজ২৪-এ। সময়- বুধবার সন্ধা ৭টা ০৫ এঃ খবরে বলা হচ্ছে- রাজধানীর শাঁখারীবাজারে হোলি উৎসবকে কেন্দ্র করে পথচারীদের জোর করে রঙ মাখিয়ে দেয়ায় তিনজনকে আটক করেছে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। তারা হলেন মো. আকাশ (১৯), মো. সিফাত (২০) ও মো. মামুন (১৮)। বুধবার তাদের আটক করা হয়। ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ছবি ও সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ পর্যবেক্ষণ করে তাদের আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। একইসঙ্গে আটকদের বিরুদ্ধে মামলা করে বৃহস্পতিবার তাদের আদালতে তোলা হবে বলে জানিয়েছে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। (সূত্র:http://bit.ly/2nI7CaK আর্কাইভ:http://archive.is/EsC7f)

এরপর বিডিনিউজ২৪-এ বুধবার, রাত ১০টা প্রকাশিত খবর দেখুন- যা পুলিশের রেফারেন্স দিয়েই প্রকাশ পায়-পুরান ঢাকার শাঁখারী বাজার এলাকায় দোল উৎসবে ঢুকে নারীদের উত্ত্যক্ত করার অভিযোগে তিন যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রোববার উৎসবের মধ্যে তারা গ্রেপ্তার হলেও বিষয়টি জানাজানি হয়েছে বুধবার বিকালে। মহানগর পুলিশের ওয়েবসাইট ডিএমপি নিউজেও বিকালে এ বিষয়ে খবর প্রকাশ হয়েছে। গ্রেপ্তাররা হলেন- মো.সিফাত (২০), মো. মামুন (১৮) ও আকাশ (১৯)।

কোতোয়ালি থানার এসআই মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সেই দিন হোলি খেলার ছলে রিকশা আরোহী দুই নারীর মুখে রঙ মাখিয়ে দিচ্ছিল ওই তিন যুবক। ওই সময় এলাকাবাসী তাদেরকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।
নারীদের উত্ত্যক্ত করার জন্যই তারা ওই উৎসবে ঢুকেছিল দাবি করে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, “নারীদের উত্ত্যক্ত করতেই তারা হোলি উৎসবে ঢুকেছিল বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে।

এসআই জাহাঙ্গীর জানান, এ ঘটনায় ভুক্তভোগী এক নারীর এক ভাই সোমবার রাতে তাদের বিরুদ্ধে থানায় নারী নির্যাতন মামলা করেন।ওই মামলায় মঙ্গলবার তিনজনকে আদালতে তোলা হয়।

পুলিশের পক্ষ থেকে তিনজনকে পাঁচদিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। সেদিন ওই আবেদনের শুনানি হয়নি, বৃহস্পতিবার হওয়ার কথা।

আদালতের আদেশে আসামিরা এখন কারাগারে আছেন বলে জানান জাহাঙ্গীর। তাদের একজনের বাসা শনিরআখড়ায়, অন্য দুজনের বাস পুরান ঢাকার আলু বাজারে।
(http://bit.ly/2mwOa0A আর্কাইভ-http://archive.is/ka5yZ)

---------------------------------------------------------------------------------------------------------------------
পাঠক ! ভালোভাবে খেয়াল করুন, দুটো খবরই পুলিশের রেফারেন্সে দেয়া এবং দুটো খবরের কোনটাই গ্রেফতারের খবরে মিল নাই। কেউ বলছে- এলাকাবাসী ধরেছে, কেউ বলছে পুলিশ ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ভিডিও দেখে ধরেছে। কেউ বলছে বুধবারও তাদের নামে মামলা হয় নাই, বৃহস্পতিবার কোর্টে তোলা হবে। আবার কেউ বলছে সোমবারাই নাকি তাদের গ্রেফতার করে মঙ্গলবার কোর্টে তুলে কারাগারে নেয়া হয়। যদিও মূল ভিডিওটা ফেসবুকে ভাইরাল হয় বুধবার সকাল থেকে।
---------------------------------------------------------------------------------------------------------------------
পাঠক ! আপনারা নিশ্চিত থাকুন, মো: সিফাত (২০), মো: মামুন (১৮) ও আকাশ (১৯) নামক যে তিনটি কাল্পনিক চরিত্রকে পুলিশ সামনে নিয়ে এসেছে তাদের সাথে হোলি পূজায় নারী হেনস্থার কোন সম্পর্ক নাই, আর এ নাটক সাজানো হয়েছে শুধু প্রকৃত অপরাধীদের আড়াল করার জন্য। সুতরাং ৩ জনের গ্রেফতারের খবরে তৃপ্তি পাওয়ার কোন কারণ নাই।
১) মূল ভিডিও লিঙ্ক- http://bit.ly/2mbm12T
২) মূল অপরাধীদের আড়াল করতে পুলিশের গ্রেফতার নাটক - http://bit.ly/2n6Jaml

৩) ভারতীয় মিডিয়া নারীর শ্লীলতাহানী হোলি উতসবের প্রধান অঙ্গ - http://bit.ly/2mDSjja


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: