6.20.2017

জঙ্গিবাদের স্রষ্টা মহান আল্লাহ পাক, বচনে: মহিলা মুফতি কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী

১/ কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীঃ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, পর্দায় কোনো আপত্তি নেইকিন্তু বোরকায় মুখ ঢেকে রাখবেন, আপনি আমাকে দেখবেন, কিন্তু আমি আপনাকে দেখতে পাব নাএকটি গ্রেনেড মেরে চলে যাবেন, এ অপকৌশল চলবে নাএটি জঙ্গিবাদী অপকৌশল

#আমাদের_উত্তরঃ তাহলে জঙ্গিবাদী অপকৌশল এর হর্তাকর্তা মহান আল্লাহ পাক আপনার কথা অনুসারে কারন, মহান আল্লাহ পাক সর্বাবস্থায় পর্দা ফরজ করে দিয়েছেন নারি পুরুষ উভয়ের জন্য। কালামুল্লাহ শরীফ এবং সহিহ হাদিস শরীফ এর হুকুম অনুসারে ১৪ জন ব্যতিত নারী পুরুষ উভয়ের জন্য পর্দার খিলাফ করে দেখা করা, বিনা প্রয়োজনে পর্দার সাথেও কথা বলা, প্রেম ভালোবাসা, রিলেশন তৈরি করা হারাম হওয়ার পরেও কিসের ভিত্তিতে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী পর্দা করতে মুখ ঢাকা লাগেনা বলে দাবি করছেন?

বেগানা নারী পুরুষের সাক্ষাৎ সম্পূর্ণ হারাম ইসলামী শরীয়ত অনুসারেঃ যারা না জেনে করছে তারা ফাসেক আর যারা জেনে শোনে বুঝে ক্ষমতা থাকা স্বতেও করছেনা বরং তা করে বেপর্দা হওয়া যাবে এই বিষয়টার স্বীকৃতি দিচ্ছে তারা মুরতাদ

দলিল পবিত্র আল কুরআন থেকেঃ

- পবিত্র সুরা নূর শরিফঃ আয়াত শরিফঃ ৩০, ৩১
- সূরা আহযাব শরিফঃ আয়াত শরিফঃ ৩২, ৩৩, ৫৩, ৫৯

দলিল পবিত্র হাদিস শরীফ, তাফসীর, ফতওয়া থেকেঃ

- সহীহ বুখারী শরীফঃ হাদীস শরীফ ৩২৪, ৪৭৫৭, ১৮৩৮, ৪৮৫০
- আবু দাউদ শরীফ ২/৪৫৭
- মুসতাদরাকে হাকীম ২/১০৪
- তিরমিযী শরীফ
- আহমাদ শরীফ
- ইবনে মাজাহ শরীফ
- তাফসীরে ইবনে কাসীর ৩/৮০৪
- আহকামুল কুরআন
- জাসসাস ৩/৩৬৯
- ফাতহুল বারী ২/৫০৫, ৮/৩৪৭
- উমদাতুল কারী ৪/৩০৫
- মাআরিফুস সুনান ৬/৯৮
- তাকমিলা ফাতহুল মুলহিম ৪/২৬৮
- মাজমুআতুল ফাতাওয়া ইবনে তাইমিয়া ২২/১০৯, ১১৪
- আহসানুল ফতোয়া খণ্ড ৫ পৃষ্টা ১৯৯
- এয়ালাউস সুনান খণ্ড ১৭ পৃষ্টাঃ ৮২১
- আহকামুল কোরআন খণ্ড ৩ পৃষ্টাঃ ৪২২
- আহসানুল ফতোয়া ৮/৪০
- এমদাদুল ফতোয়া ৪/২০০
- তাফসীরে কুরতবী ১৪/২৪৩
- তাফসীরে তবারী ১০/৩৩১
- তাফসীরে তবারী ১০/৩৩২
- আহকামুল কোরআন ৩/৪১০
- তাফসীরে ইবনে কাসীর ৩/৮২৪
- আহকামুল কুরআন, জাসসাস ৩/৩৭২
- তাফসীরে কুরতুবী ১৪/১৫৬
- জামেউল বয়ান
- তাফসীরে রূহুল মাআনী ২২/৮৮

এখন কথা হলো গিয়ে মুসলমান কি উপরের কুরআন সুন্নাহর দলিল মানবে নাকি কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীর কথা মেনে কুরআন সুন্নাহর বিপক্ষে অবস্থান নিবো?

২/ কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীঃ রোববার দুপুরে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার ভেদিকুড়া নিন্ম মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে গরিবদের মাঝে বস্ত্র বিতরণকালে কাপড় নিতে আসা বোরকায় মুখ ঢাকা এক নারীকে দেখে এসব কথা বলেনমতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘আপনারা খুব পর্দানশিন, আমরাও বেহায়া বেশরম নাবাংলাদেশের রাস্তা দিয়া হাইট্যা পথ ভাইঙ্গাই এ পর্যন্ত আসছিআপনি মুখ ঢাকতে হলে বাড়িতে গিয়ে ঢাকবেনপাবলিক প্লেসে এলে মুখ খোলা রাখতে হবেপাসপোর্ট করতে গেলে মুখ খোলা রাখতে হয়পাসপোর্ট না হলে হজে যেতে পারবেন নাহজের ড্রেসের বাইরে বাড়তি কোনো ইয়ের দরকার নেইতিনি প্রশ্ন করে বলেন, শেখ হাসিনা যে ড্রেস পরেন, উনি তো মুখ ঢাকেন নাউনার কি পর্দা হয় না?

#আমাদের_উত্তরঃ মতিয়া চৌধুরী বলছেন পাবলিক প্লেসে এলে মুখ খোলা রাখতে হবে, আর মহান আল্লাহ পাক তিনি বলছেন ১৪ জন ব্যতিত কারো কাছে একটি চুল ও প্রকাশ করা যাবেনা। মতিয়া চৌধুরী বলছেন পাসপোর্ট করতে গেলে মুখ খোলা রাখতে হয়পাসপোর্ট না হলে হজে যেতে পারবেন নাহজের ড্রেসের বাইরে বাড়তি কোনো ইয়ের দরকার নেই ছবি তুলে হজ্জে আপনারা বাধ্য করছেন। ছবি তুলে বেপর্দা হয়ে হজ্জ করলে হজ্জ হবে এইটা মতিয়া চৌধুরী কোথায় পেলেন? আর হজ্জের ড্রেসে পর্দা নাই এইটা মতিয়া চৌধুরীকে কে বল্ল? অথচ হাদিস শরীফে এসেছে উম্মুল মুমিনীন হযরত আয়েশা সিদ্দিকা আলাইহাস সালাম বলেনঃ [كان الركبان يمرون بنا و نحن محرمات مع الرسول فإذا حاذونا سدلت إحدانا جلبابها على وجهها من رأسها فإذا جاوزنا كشفناه] আমরা রাসূলুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে এহরাম অবস্থায় ছিলাম, উষ্ট্রারোহী পুরুষরা আমাদের পার্শ্বদিয়ে অতিক্রম কালে আমাদের মুখামুখি হলে আমরা আমাদের মাথার উপর থেকে চাদর টেনে চেহারার উপর ঝুলিয়ে দিতামতারা আমাদেরকে অতিক্রম করে চলে গেলে আমরা মুখমন্ডল খুলে দিতাম। (আহমাদ শরীফ, আবু দাউদ শরীফ, ইবনে মাজাহ শরীফ)

৩/ কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীঃ বলছেন শেখ হাসিনা যে ড্রেস পরেন, উনি তো মুখ ঢাকেন নাউনার কি পর্দা হয় না?

#আমাদের_উত্তরঃ ইসলামের দলীল কি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা? প্রধানমন্ত্রী কি পরেন কি পরেন না ইসলাম কি এর উপর দন্ডায়মান?

নিউজ সত্যতাঃ যুগান্তর অনলাইন ভার্সনঃ (http://bit.ly/2sJ6nxS) আর্কাইভ যদি সরাসরি পাওয়া না যায়ঃ (http://archive.is/oYiHd)

একজন মুসলিম হিসেবে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীকে বলতে চাই যে আপনি কুফুরি করেছেন এতএব পবিত্র ফরজ পর্দার ব্যাপারে যে মনগড়া কথা বলেছেন তার উপর অনুতপ্ত হয়ে তওবা করে নেবেন ৩ দিনের ভেতর প্রকাশ্যে যদি না নেন আর এর পরে আপনি মারা যান তাহলে আপনি মুরতাদ হিসেবে মারা যাবেন এবং আপনি যখন মুরতাদ হয়ে দুনিয়া যেদিন ছাড়বেন তওবা ব্যতিত সেদিন আপনার জানায়ায় জেনে শুনে যতো লোক দাঁড়াবে তারাও মুরতাদ বলে গন্য হবে।


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: