7.27.2017

ইহুদিবাদী ইসরাঈলের ধ্বংস অনিবার্য!!!

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেনঃ [وَقَطَّعْنَاهُمْ فِي الْأَرْضِ أُمَمًا ۖ مِّنْهُمُ الصَّالِحُونَ وَمِنْهُمْ دُونَ ذَٰلِكَ] (আর আমি তাদেরকে বিভক্ত করে দিয়েছি দেশময় বিভিন্ন শ্রেনীতে, তাদের মধ্যে কিছু রয়েছে ভাল আর কিছু রয়েছে ভ্রান্ত!) পবিত্র আল কুরআনের পবিত্র সূরা আরাফ শরিফের এই ১৬৮ নং আয়াত শরীফ দ্বারা প্রমাণিত হয় যে, ইহুদীরা কোনদিন ঐক্যবদ্ধ জীবন যাপন করতে পারবে নাকিন্তু বাস্তবে আমরা দেখছি তারা ইসরাঈল নামে একটি নিজস্ব রাষ্ট্র সৃষ্টি করে প্রায় ৬০ বছর ধরে সমবেত হচ্ছেমূলত ইসরাঈল কখনোই একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র নয়বরং মুসলমানদের বিরুদ্ধে বৃহৎ শক্তিবর্গের সৃষ্ট একটি সামরিক কলোনী মাত্র

এই বশংবাদ কলোনীটিকে রাষ্ট্র নাম দেওয়াটাও বৃহৎ শক্তিবর্গের রাজনৈতিক খেলাতাছাড়া পৃথিবীর বিভিন্ন স্থান থেকে বর্তমান ইসরাঈলে তাদের জমা হওয়াটা চূড়ান্ত ধ্বংসের আলামত হতে পারে এবং এই আলামত ধীরে ধীরে প্রকাশ পাচ্ছেইসরাঈল যে সত্যিকারের বিপদে পড়তে যাচ্ছে, তা একটু ফিকির করলেই বোঝা যাবে সাথে যদি থাকে কুরআন সুন্নাহর জ্ঞান

ইসরাঈলের মোট জনসংখ্যা ৭.১ মিলিয়নতন্মধ্যে ইহুদী ৫.৫ মিলিয়নআর বাকী ১.৬ মিলিয়ন মুসলমানআর গাজা ও পশ্চিম তীরে বসবাসকারী সব মুসলমান মিলে মোট সংখ্যা দাঁড়ায় ৫.৫ মিলিয়নএখনই মুসলমানরা ইহুদীদের থেকে ১ লাখ বেশী২০২০ সালের মধ্যে ২১ লাখের বেশী হবে (Can Israel Survive? টিম ম্যাকগাক, দি টাইম ম্যাগাজিন, ১৯ জানুয়ারী বঙ্গানুবাদ : ইফতেখার আমিন, নয়া দিগন্ত, ২৯ জানুয়ারী ০৯, পৃঃ ৬)তখন এমনিতেই দৃশ্যপট পাল্টে যাবেতাইতো অনেক বুদ্ধিজীবী মনে করেন ফিলিস্তীনীদের উচিৎ দ্বৈত-রাষ্ট্র সমাধানের আশা বাদ দিয়ে জনসংখ্যা বৃদ্ধির চেষ্টা করাতাতে যদিও কয়েক দশক লেগে যাবে কিন্তু এতে ইসরাঈলীদের বিপদ ঘটবে

এছাড়া এটাও ঐতিহাসিক সত্য যে, অত্যাচার করে কেউ কোনদিন টিকে থাকেনিবরং অসত্যের পতন অবশ্যম্ভাবীসুতরাং ইসরাঈলও একদিন ধ্বংস হবেকেননা শত সহস্র শহীদের পথ থেকে ফিলিস্তীনীরা এক চুল সরে দাঁড়ায়নিপুরনো প্রজন্মের ফিলিস্তীনীরা মুক্তিযুদ্ধের সাথে সামান্যতম আপোষকামী দেখায়নিশহীদের রক্ত, বোমায় ঝাঁঝরা হওয়া শরীর কথা বলতে শুরু করেছেশরণার্থী শিবিরে সদ্য জন্ম নেয়া শিশুটাও মুক্তির স্বপ্নে বিভোরশহীদ হওয়ার মাঝে যে জাতি আনন্দ পায় তাদেরকে হত্যা করা যায়, ধ্বংস করা যায় নাঅবরুদ্ধ করা যায় কিন্তু স্বাধীনতার আকাশছোঁয়া স্বপ্নচ্যুত করা যায় না

আর তাদের জন্য কি করুন পরিণতি অপেক্ষা করছে তা দেখে নিন এই হাদীস শরীফ ের মধ্যে। পবিত্র হাদীস শরীফ এর মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছি "ক্বিয়ামত সংঘটিত হবে না ততক্ষণ পর্যন্ত যতক্ষণ না মুসলমানেরা ইহুদীদের সাথে লড়াই করবেতারা ইহুদীদের হত্যা করবেইহুদীরা পাথর খন্ড ও গাছের আড়ালে লুকাবেতখন পাথর ও গাছগুলি বলবে হে মুসলিম! এই যে ইহুদী আমার পিছনেএসো, ওকে হত্যা করো (মুসলিম শরীফঃ হাদীস শরীফ নং ৮২, কিতাবুল ফিতান, মিশকাত শরীফঃ হাদীস শরীফ নং ৫১৪৪)তাই হতে পারে ফিলিস্তীনে তাদের জমা হওয়াটা চূড়ান্ত ধ্বংসের পূর্ব আলামত


পরিশেষে বলব ফিলিস্তীন মুসলমানদেরইবায়তুল আক্বসা শরীফ মুসলমানদেরইপৃথিবীর কোন শক্তি তাদেরকে এ অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে পারবে নাআর সত্যিই মুসলিম শাসকদের যদি কখনো সুমতি হয় তবে প্রতিটি বিবেকবান মুসলিমের আত্মা, চলমান অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে নিজেদের ঈমানী দায়িত্বে সর্বস্ব বিলিয়ে দিতে দ্বিধা করবে না মহান আল্লাহ পাক তিনি মুসলিম বিশ্বের পাঞ্জেরীদের সঠিক চেতনা দান করুনআমীন!!ইহুদিবাদী ইসরাঈলের ধ্বংস অনিবার্য!!!

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেনঃ [وَقَطَّعْنَاهُمْ فِي الْأَرْضِ أُمَمًا ۖ مِّنْهُمُ الصَّالِحُونَ وَمِنْهُمْ دُونَ ذَٰلِكَ] (আর আমি তাদেরকে বিভক্ত করে দিয়েছি দেশময় বিভিন্ন শ্রেনীতে, তাদের মধ্যে কিছু রয়েছে ভাল আর কিছু রয়েছে ভ্রান্ত!) পবিত্র আল কুরআনের পবিত্র সূরা আরাফ শরিফের এই ১৬৮ নং আয়াত শরীফ দ্বারা প্রমাণিত হয় যে, ইহুদীরা কোনদিন ঐক্যবদ্ধ জীবন যাপন করতে পারবে নাকিন্তু বাস্তবে আমরা দেখছি তারা ইসরাঈল নামে একটি নিজস্ব রাষ্ট্র সৃষ্টি করে প্রায় ৬০ বছর ধরে সমবেত হচ্ছেমূলত ইসরাঈল কখনোই একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র নয়বরং মুসলমানদের বিরুদ্ধে বৃহৎ শক্তিবর্গের সৃষ্ট একটি সামরিক কলোনী মাত্র

এই বশংবাদ কলোনীটিকে রাষ্ট্র নাম দেওয়াটাও বৃহৎ শক্তিবর্গের রাজনৈতিক খেলাতাছাড়া পৃথিবীর বিভিন্ন স্থান থেকে বর্তমান ইসরাঈলে তাদের জমা হওয়াটা চূড়ান্ত ধ্বংসের আলামত হতে পারে এবং এই আলামত ধীরে ধীরে প্রকাশ পাচ্ছেইসরাঈল যে সত্যিকারের বিপদে পড়তে যাচ্ছে, তা একটু ফিকির করলেই বোঝা যাবে সাথে যদি থাকে কুরআন সুন্নাহর জ্ঞান

ইসরাঈলের মোট জনসংখ্যা ৭.১ মিলিয়নতন্মধ্যে ইহুদী ৫.৫ মিলিয়নআর বাকী ১.৬ মিলিয়ন মুসলমানআর গাজা ও পশ্চিম তীরে বসবাসকারী সব মুসলমান মিলে মোট সংখ্যা দাঁড়ায় ৫.৫ মিলিয়নএখনই মুসলমানরা ইহুদীদের থেকে ১ লাখ বেশী২০২০ সালের মধ্যে ২১ লাখের বেশী হবে (Can Israel Survive? টিম ম্যাকগাক, দি টাইম ম্যাগাজিন, ১৯ জানুয়ারী বঙ্গানুবাদ : ইফতেখার আমিন, নয়া দিগন্ত, ২৯ জানুয়ারী ০৯, পৃঃ ৬)তখন এমনিতেই দৃশ্যপট পাল্টে যাবেতাইতো অনেক বুদ্ধিজীবী মনে করেন ফিলিস্তীনীদের উচিৎ দ্বৈত-রাষ্ট্র সমাধানের আশা বাদ দিয়ে জনসংখ্যা বৃদ্ধির চেষ্টা করাতাতে যদিও কয়েক দশক লেগে যাবে কিন্তু এতে ইসরাঈলীদের বিপদ ঘটবে

এছাড়া এটাও ঐতিহাসিক সত্য যে, অত্যাচার করে কেউ কোনদিন টিকে থাকেনিবরং অসত্যের পতন অবশ্যম্ভাবীসুতরাং ইসরাঈলও একদিন ধ্বংস হবেকেননা শত সহস্র শহীদের পথ থেকে ফিলিস্তীনীরা এক চুল সরে দাঁড়ায়নিপুরনো প্রজন্মের ফিলিস্তীনীরা মুক্তিযুদ্ধের সাথে সামান্যতম আপোষকামী দেখায়নিশহীদের রক্ত, বোমায় ঝাঁঝরা হওয়া শরীর কথা বলতে শুরু করেছেশরণার্থী শিবিরে সদ্য জন্ম নেয়া শিশুটাও মুক্তির স্বপ্নে বিভোরশহীদ হওয়ার মাঝে যে জাতি আনন্দ পায় তাদেরকে হত্যা করা যায়, ধ্বংস করা যায় নাঅবরুদ্ধ করা যায় কিন্তু স্বাধীনতার আকাশছোঁয়া স্বপ্নচ্যুত করা যায় না

আর তাদের জন্য কি করুন পরিণতি অপেক্ষা করছে তা দেখে নিন এই হাদীস শরীফ ের মধ্যে। পবিত্র হাদীস শরীফ এর মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছি "ক্বিয়ামত সংঘটিত হবে না ততক্ষণ পর্যন্ত যতক্ষণ না মুসলমানেরা ইহুদীদের সাথে লড়াই করবেতারা ইহুদীদের হত্যা করবেইহুদীরা পাথর খন্ড ও গাছের আড়ালে লুকাবেতখন পাথর ও গাছগুলি বলবে হে মুসলিম! এই যে ইহুদী আমার পিছনেএসো, ওকে হত্যা করো (মুসলিম শরীফঃ হাদীস শরীফ নং ৮২, কিতাবুল ফিতান, মিশকাত শরীফঃ হাদীস শরীফ নং ৫১৪৪)তাই হতে পারে ফিলিস্তীনে তাদের জমা হওয়াটা চূড়ান্ত ধ্বংসের পূর্ব আলামত

পরিশেষে বলব ফিলিস্তীন মুসলমানদেরইবায়তুল আক্বসা শরীফ মুসলমানদেরইপৃথিবীর কোন শক্তি তাদেরকে এ অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে পারবে নাআর সত্যিই মুসলিম শাসকদের যদি কখনো সুমতি হয় তবে প্রতিটি বিবেকবান মুসলিমের আত্মা, চলমান অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে নিজেদের ঈমানী দায়িত্বে সর্বস্ব বিলিয়ে দিতে দ্বিধা করবে না মহান আল্লাহ পাক তিনি মুসলিম বিশ্বের পাঞ্জেরীদের সঠিক চেতনা দান করুনআমীন!!


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: