7.08.2017

নাস্তিক শিকদারের আল্লাহ, রসূল, মসজিদ, কুরাআন অবমাননার কি কোন বিচার হবেনা?

দিন দিন নাস্তিকদের ইসলাম বিদ্বেষী কাজের পরিমান বেড়েই চলেছে। আর এর মূল কারন হচ্ছে মুসলমানদের সেইসব নাস্তিকদের ইসলাম বিদ্বেষী কাজ দেখেও প্রতিবাদ করে মুখ বোজে থাকা। আজকে যদি মুসলমান প্রত্যেক্টা নাস্তিক কে দাঁতভাঙ্গা জবাব দিতো তাহলে কিন্তু তারা মহান আল্লাহ পাক, রাসুলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের নিয়ে কোনো কটুক্তির সাহস পেতনা। আপনাদের চোখ বোজে মাথা পেতে মেনে নেওয়ার কারনে আজকে প্রকাশ্যে দিনের পর দিন  তারা তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে যেমনঃ নাস্তিক আব্দুল্লাহ শিকদার তার ফেসবুকের পাতায় অভিরত লিখে যাচ্ছে কিন্তু সরকার, প্রশাসন, পাবলিক নির্বিকার তবে কি সবাই নাস্তিক হয়ে গেছে? আজকে কেউ যদি সরকার, প্রশাসন, পাবলিকের মা বাব ভাই বোন কে এভাবে প্রকাশ্যে গালিগালাজ করতো তবে তারা নির্বিকার থাকতে পারতোঃ

নাস্তিক আব্দুল্লাহ শিকদারের ইসলাম বিদ্বেষী কাজের কিছু নমুনা নিচে পেশ করলামঃ

০১/ আমার বাবা মরহুম আব্দুল মজিদ শিকদারের মুক্তিযুদ্ধের স্বাধীনতা পদক ও সংবিধান পদক আমার আলমিরার ড্রয়ারে বসে বসে কেবলই আল্লাহ বলে জিকির করছে সনদের আশায়। কিন্তু পাচ্ছে না। আল্লাহ কি পারবে সনদের ব্যবস্থা করতে? যদি পারে তবেই আমি বিশ্বাস করবো, আল্লাহ আছে। নয়তো ধরে নেবো, আল্লাহ হল মুহাম্মাদের কল্পনার পাত্র। (http://archive.is/fQlbS)

/ মসজিদের ঈমামরা মানূষকে অসৎ হতে সাহায্য করে বলেই অসৎ মানুষ বেহেস্ত্ পাবার আশায় মসজিদে গিয়ে আল্লাহর কাছে মাফ চায় এবং বেহেস্ত্ দাবি করে। যা কখনও সম্ভব নয়। (http://archive.is/bmX4K)

/ যারা পাপ বা গোনাহ করে আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে, তারা নিতান্তই বোকা ও বিপথগামী। (http://archive.is/UGnTE)

/ মসজিদ মানুষের ক্ষুধা নিবারন করবেনা কিন্তু বৃক্ষ মানুষের ক্ষুধাসহ অনেক বিষয়েরই সমাধান দেবে। (http://archive.is/gcBcq)

/ ৫৬০টি মসজিদ না বানিয়ে ৫৬০০০০০০টি বৃক্ষ রোপণ করলে পরিবেশ রক্ষায় দেশ এগিয়ে যেত। (http://archive.is/HbjGP)

/ ৫৬০ টা মসজিদ নয়, ৫৬০ টা গরুর খামার চাই। গরুর খামার দূধ দেবে, মসজিদ দেবে জঙ্গী। (http://archive.is/IwHLS)

/ সরকার ৫৬০টি মসজিদ নির্মান না করে ৫৬০ টি গরুর খামার নির্মান করলে বরং আরো বেশি সুফল পেতেন, জনগনও উপকৃত হতেন। ৫৬০টি মসজিদ বাংলাদেশকে শব্দ দূষণে পৃথিবীতে চ্যাম্পিয়নশীপ এনে দেবে। এবং এক যূগের ব্যবধানেই বাংলাদেশকে আফগানিস্তানে রূপান্তর করবে। সরকার প্রমান করলো যে, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক দেশ, যদিও মখে বলে অসাম্পদায়িক। এই হল অসাম্প্রদায়িকতার নমূনা। একেই বলে অসাম্পদায়িক বাংলাদেশ, শুধুই মসজিদ নির্মান হবে। কিন্তু যেখানে ৮% মন্দির, ১% গীর্জা এবং ১% প্যাগোডা নির্মান ছিল অত্যন্ত জরুরী। (http://archive.is/x55EW)

/ যেখানে বাড়ি করার মত জমি নাই, সেখানে মসজিদের ছড়াছড়ি। সবাই এখন থেকে মসজিদেই ঘুমাবে। (http://archive.is/HeQC1)

/ বাড়ি বানাতে সরকারের ছাঁড়পত্র লাগবে। কিন্তু মসজিদ বানাতে কিছুই লাগবে না। হায়রে আইন? (http://archive.is/codac)

১০/ পৃথিবীর সকল বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার অমুসলমানদের। অথচ মুসলমানরা বলে কুরআন হল পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বড় বিজ্ঞান। বাল কাটার ব্লেডও মুসলমানরা আজ পর্যন্ত আবিষ্কার করতে পারে নাই। মুসলমানরা ইহুদীদের চরম ঘৃনা করে কিন্তু ইহুদীদের আবিষ্কৃত মাইক দিয়ে আজান দিতে খুবই শান্তি লাগে মুসলমানদের। বাকীগুলো নাই বা বললাম। (http://archive.is/2qzol)

১১/ পৃথিবীতে মুসলমানরা অসৎ ও অসভ্য বলেই, জীবনে নির্যাতন, ও অশান্তির শিকার হচ্ছে। (http://archive.is/fxXFn)

১২/ সেই মা জাহান্নামী হবে, যার সন্তান বিএনপি, জামায়াত-শিবির ও হেফাজত করবে। (http://archive.is/rVpZ4)

১৩/ মুসলমানরা সততা বোঝে না, বোঝে নামাজ। সততা আনে সভ্যতা, নামাজ আনে ৭০ টা হুর। (http://archive.is/ieJPt)

১৪/ সবাই নামাজ পড়ে গুনাহ/পাপ থেকে মাফ পাওয়ার জন্য, বেহেস্ত পাওয়ার জন্য। আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য নয়। সভ্যতা সৃষ্টির জন্যও নয়। ঘুষ, দূর্ণীতি, সন্ত্রাস, ধর্ষণ, প্রতারণা, আত্নসাৎ, মাদক দ্রব্যের অপব্যবহারসহ সকল প্রকার অবৈধ উপার্জন করার পর যে পাপ অর্জন করে, তা থেকে মাফ পাবার জন্যই মুসলমানরা নামাজ পড়ে। পৃথিবীর কোন ঈমাম সৎভাবে জীবিকার্জনের উপদেশ না দিয়ে বরং জীবনের সব গুনাহ মাফ করে বেহেস্তের টিকিট বিক্রি করে ৫/১০ টাকার বিমিয়ে। (http://archive.is/ruc75)

/ বঙ্গবন্ধুর উপরও জাতির বিশ্বাস ছিল, রাজাকারদের প্রতি উদার নীতিই তাঁর মৃত্যুর কারন হয়ে দাঁড়ালো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও একই পথ অনুসরণ করছেন। তবে কি ধরে নেবো আজরাইল তাঁর আশেপাশে ঘুরঘুর করছে??? সুত্রঃ (http://archive.is/CO0r5)

শুধু উপরের গুলো নয় তার ইসলামবিদ্বেষী লেখালেখির খবর জাতীয় অনলাইনে আসলেও প্রসাসন নিরব ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে যেখানে সে লিখেছিলোঃ আজান ও ওয়াজে মাইক ব্যবহারে পরিবেশ ধ্বংশ হচ্ছে!  কুরআনকে বিজ্ঞান বলা, পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা বলা, সংবিধান বলা শুধু হাশ্যকরই নয়, বরং তামাশাও বটে। দেখতে পারেনঃ (http://bit.ly/2tWoUr4)


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: