7.08.2017

শুধু ভারতে নয় এদেশেও দিন দুপুরে উগ্রহিন্দুরা মুসলমানদের হত্যা করছে নির্মমভাবে

বিফ খাস! বলেই মার, ভাইটাকে মেরেই ফেলল ভারতের হরিয়ানায় জুনায়েদ নামের ১৬ বছরের এক রোজাদার কিশোরকে দিনেদুপুরে ট্রেনে পিটিয়ে মারা হলজুনায়েদের মা সায়রা বেগম বাড়িতে ইফতার নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন কখন উনার কলিজার টুকরা হাফেজ ছেলে বাড়ী ফিরবে (https://goo.gl/wg947e)

ভারতের বিহারে আমিরুননামে আট বছরের এক কন্যাশিশুকে ছুরি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে গাছ থেকে আম পেড়ে খাওয়ার জন্য। (https://goo.gl/dUaUHU)

ঈদ উপলক্ষে শ্বশুর বাড়ি থেকে মায়ের বাড়ি আসছিল পশ্চিমবঙ্গের ওতেরা বিবিমানসিক ভারসাম্যহীন ঐ মহিলা টি ভূল করে সেকেন্দ্রা অঞ্চলে ঢুকে পরলে তাকে ছেলে ধরা অপবাদ দিয়ে ট্রাকটারের সাথে বেঁধে গণপিটুনি দেয়া হয়পুলিশের চোখের সামনে তাকে তিল তিল করে মরতে হলকারণ সে মুসলমান। (https://goo.gl/iBqYir)

আর বাংলাদেশে? বাংলাদেশের চট্টগ্রামে বিপ্লব নামক এক হিন্দু দর্জি ধর্মীয় বিষয় নিয়ে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে কেঁচির আঘাতে খুন করল ৯ম শ্রেণির ছাত্র সাগরকে, যে কিনা ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন চট্টগ্রাম মহানগর বায়েজিদ থানার আওতাধীন চন্দ্রনগর ইউনিট এর স্কুল বিষয়ক সম্পাদক! (https://goo.gl/TE1dh2)

একটু চিন্তা করলেই বোঝা যাবে, ধর্মীয় বিষয় নিয়ে বাকবিতণ্ডা, অর্থাৎ নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম নিয়ে নিশ্চয়ই কটূক্তি করেছিল হিন্দু দর্জিটিইসলাম নিয়ে কটূক্তি, অতঃপর ইসলামী দলেরই একজন নেতৃস্থানীয় কর্মী খুনচরমোনাই পীরের নেতৃত্বাধীন ইসলামী শাসনতন্ত্রের নেতাকর্মীদের কি উচিত ছিল না, ঐ হিন্দু দর্জিটিকে খুঁজে বের করে তাকে প্রকাশ্যে গণপিটুনি দিয়ে কুকুরের মত হত্যা করা? ভারতে এতো এতো মুসলমানকে কথায় কথায় গণপিটুনি দিয়ে শহীদ করা দেখেও কি ‍মুসলমানদের রক্ত এতটুকু গরম হবে না?

কিন্তু না, তারা সেটার কিছুই করল নাতারা মানববন্ধন করল, প্রশাসনের কাছে সর্বচ্চ শাস্তিরদাবি জানালযেনো হিন্দুশাসিত আওয়ামী প্রশাসন তাদের মামাবাড়ি লাগে! যদি সাগরের মৃত্যু হিন্দু দর্জির হাতে না হয়ে অন্য কোন বিপক্ষ দলের(সুন্নি বা আহলে হাদিস) কর্মীর হাতে হতো, অবশ্যই সেক্ষেত্রে চরমোনাইয়ের দলের লোকজন বিপক্ষের রক্তপাত ও প্রাণহানি ঘটাতকিন্তু এখানে হিন্দু বলে তারা মেনি বিড়ালের মতো মিউমিউ করল কেবল

তারা তো গর্ব করে থাকে, সারাদেশে নাকি তাদের লাখ লাখ অনুসারীআফসোস, এই চরমোনাইপন্থীরা লাখ লাখ অনুসারী নিয়ে একটা হিন্দুর মরামুখও নিশ্চিত করতে পারল নামানববন্ধন নামক পিকনিক করে তারা তাদের দায়িত্ব শেষ করলএজন্য আমাকে একজন বলেছিল, যদি কেউ চুরি করে ধরা পড়ে, ডাকাতি করে ধরা পড়ে, তখন সে যেন গণপিটুনি থেকে বাঁচতে শুরুতেই বলে, আমি হিন্দুএমনকি ধর্ষণ করেও যদি কেউ ধরা পড়ে, তাহলে সে যেন বলে আমি হিন্দু

তাহলে উপস্থিত মুসলমানরা কেউ তাকে একটা টোকা দেয়ারও সাহস করবে না


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: