11.13.2017

সোনার বাংলা অচিরেই বার্মায় পরিণত হবে রংপুরের মুসলিম হত্যার জাস্টিফিকেশনের কারণে

নেকড়ে আর মেষশাবকের গল্পটি আমরা সবাই জানি মেষশাবককে খেতে যেভাবে নেকড়ের ছুতার দরকার হয়েছিল, ঠিক সেভাবেই মুসলিম হত্যা করতে কাফিরেরা নানারকম ছুতোর অবতারণা করে থাকেইরাকে হামলা করতে ব্যাপক বিধ্বংসী অস্ত্রএর ছুতোর দরকার ছিল, সিরিয়ায় আক্রমণ করতে দরকার হয়েছে আইএসছুতোসম্প্রতি বার্মায় রোহিঙ্গা গণহত্যা চালাতে ব্যবহার করা হয়েছে আরসাছুতোকে

অর্থাৎ যদি কোনো ছুতানাতায় মুসলিম হত্যাকাণ্ডকে বৈধতা দেয়া যায়, তাহলেই যে কোন দেশকে সিরিয়া-আফগানিস্তানে পরিণত করার পথ উন্মুক্ত হয়উল্লেখ্য, বর্তমানে এদেশে রংপুরে ৬ জন মুসলিম হত্যা করাটা সঠিক ছিল বলে অনলাইনে ব্যাপক প্রচার চালাচ্ছে নাস্তিক ও হিন্দু সম্প্রদায়

নাস্তিক আরিফুর রহমানের সহযোগী ব্রিটেনের অজন্তা দেব রায় নামক কট্টর হিন্দু বেশ্যাটি বারবার ইনিয়ে বিনিয়ে বলে যাচ্ছে, ”মুসলমানদের উপর গুলি না চালালে কি যে হয়ে যেতো! ভাগ্য ভালো যে মুসলমানদের উপর গুলি করা হয়েছেএদের এই মিথ্যাচারের জবাব দেয়া কঠিন কিছু নয়কারণ শুরুতেই মুসলমানরা রাস্তায় নামেনি, থানায় গিয়ে মামলা করেছেযদি সত্যিই হিন্দুদের হামলা করার ইচ্ছা রংপুরের মুসলমানদের থাকত, তাহলে ২৮শে অক্টোবরেই তো তারা হামলা করতে পারতপুলিশের উপর আস্থা রেখে ১০ দিন ধরে অপেক্ষা করার কী দরকার ছিল রংপুরবাসীর? কখনো শুনেছেন, হামলার আগে হামলাকারীকে পুলিশের কাছে গিয়ে বিচার চাইতে?

কিন্তু বাঙালি মুসলমান বোঝে না, ইতিহাস অনুযায়ী হিন্দু সম্প্রদায় স্বাধীনতাবলতে বোঝে মুসলিম নারী ধর্ষণ, মসজিদ সমূহ অপবিত্রকরণ ও ইসলাম ধর্ম নিয়ে যথেচ্ছ কটূক্তি বর্ষণমুঘল বাদশাহ আকবর যখন হিন্দুদের আশকারা দিয়ে মাথায় তুলেছিল, তখন দিল্লী ও তৎসংলগ্ন এলাকায় মসজিদ ভেঙে মন্দির বানানোর হিড়িক পড়ে গিয়েছিলআতঙ্কে দিল্লীর মুসলমানদের একটি বড় অংশ বিহার ও বাংলায় হিজরত করতে বাধ্য হয়েছিলএগুলো প্রামাণ্য ইতিহাস, কল্পকাহিনী নয়হযরত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি ও অন্যান্য মুসলিম ব্যক্তিত্বদের বিভিন্ন সমকালীন রচনায় এটাও পাওয়া যায় যে, হিন্দুরা তখন ইসলাম ধর্ম নিয়ে যথেচ্ছ কটূক্তি করত

সে হিসেবে বর্তমান আওয়ামী লীগ আমলে হিন্দুরা ধরেই নিয়েছে যে, তারা ইসলাম নিয়ে কটূক্তির লাইফটাইম লাইসেন্স পেয়ে গিয়েছেসেই স্বাধীনতায় যদি কোন মুসলমান কষ্ট পায়, প্রতিবাদ করতে চায়, সেক্ষেত্রে আমেরিকার সমীরণ ভট্টাচার্যের মতে তাকে পুলিশ দিয়ে গুলি করে হত্যা করতে হবেরংপুরে সেই মুসলিম হত্যার জাস্টিফিকেশনই রচিত হয়ে গেলভিডিওতে স্পষ্ট দেখা গিয়েছে যে, হিন্দুপাড়া থেকে বহু দূরে মুসল্লীরা রাজপথে প্রতিবাদ করছে, সেখানেই তাদের উপর গুলি চালানো হয়েছে হিন্দুপাড়ায় হামলার আশঙ্কায়

সে হিসেবে অদূর ভবিষ্যতে দেখা যাবে, হিন্দুপাড়া থেকে দশ মাইল দূরে কোন মসজিদে ইসলাম নিয়ে কটূক্তির প্রতিবাদ করা হয়েছে, তাই পুলিশ সেই মসজিদে ঢুকে মুসল্লীদের হত্যা করেছেটেকনাফে কেউ ইসলাম অবমাননা করেছে, সেটার প্রতিবাদ তেঁতুলিয়া থেকে করলে সেখানেও তাকে হত্যা করা হয়েছে

এভাবেই সোনার বাংলা অচিরেই বার্মায় পরিণত হবেবার্মার মংডু থেকে রংপুরের দুরত্ব খুব বেশি নয়, উভয় জায়গাতেই গ্রামগুলো মুসলিমশূন্য করা হয়েছেএ অবস্থা থেকে মুসলমানদের উত্তরণের উপায় হলো রুখে দাঁড়ানোএদেশের মুসলমানরা হিন্দুদের নাটকের শিকার হয়ে দিনাজপুরে পালিয়েছে, নাসিরনগরে পালিয়েছে, রংপুরে পালিয়েছেতারা পালায় কেন, পালিয়ে তো রক্ষা পাওয়া যাবে নাতাদেরকে বুঝতে হবে যে, আওয়ামী দানবের জিয়নকাঠি-মরণকাঠি হলো হিন্দু সম্প্রদায়, আর এই হিন্দুর রক্ত দেখতেই বাঙালি মুসলমান ভয় পায়সেক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ কেন মুসলমানদের উপর আগ্রাসী হবে না? যেদিন বাংলার মুসলমানরা অসাম্প্রদায়িকতার শিকল ছিন্ন করে, সংখ্যাগরিষ্ঠ হিসেবে সংখ্যালঘুদের জীবন-মরণের এখতিয়ার নিজ হাতে নিতে পারবে, সেদিনই আওয়ামী দানবটি এদেশের মুসলমানদের সমীহ করতে শিখবে

অর্থাৎ রংপুরবাসী মুসলমানরা যদি ভয় পেয়ে পালিয়ে না যেয়ে রুখে দাঁড়াত, ৫০-১০০ হিন্দুর মরামুখ নিশ্চিত করতে পারত, ইসলাম বিদ্বেষী দানব মহল আজ সংযত হয়ে যেতসেই সুযোগ হয়তো রংপুরের কাপুরুষ মুসলমানদের ক্ষেত্রে হয়নিতবে আমি আশাবাদী যে, মুসলমানদের ফাঁসাতে হিন্দুদের এই গৎবাধা নাটক নাসিরনগর, কর্নাই, রংপুরে মঞ্চায়িত হলেও এদেশের কোন না কোন জায়গায় মঞ্চের পর্দা ছিঁড়তে সক্ষম হবে মুসলমানরাকোন না কোন জায়গায় ঠিকই হিন্দুদের চক্রান্ত বুমেরাং হবেইসেই দিনটির জন্যই আমরা মুসলমানরা আজও এদেশে আশায় বুকে বেঁধে বেঁচে রয়েছি


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: