11.14.2017

নিজ ঘরে আগুন দিয়ে হিন্দুরা কি পেলো আর মুসলমানরা কি পেলো?

আপনি কি বাংলাদেশী হিন্দু? আপনার বাসা কি ভাংগা টিনের বা ছনের? আপনার বাসায় কি দামী টিভি, ফ্রিজ আসবাবপত্র কিছুই নেইতাহলে আজই ফেসবুকে নিজের নামে একটি একাউন্ট খুলুন এবং মুসলিম ধর্ম বা নবী রাসুলদের নামে একটি বাজে পেইজ খুলে বাজে কথা লিখে মুসলমানদের আপনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে বাধ্য করুন, তারপর সুযোগ বুঝে পরদিন রাত্রে নিজের বাসায় আগুন লাগিয়ে দিন, রাতারাতি আপনার ভাগ্য বদলে যাবে।

সরকারি দামী ফ্লাট বাড়ি, দামী টিভি, ফ্রিজ, আসবাবপত্র সব কিছুই পেয়ে যাবেন ২-৩ দিনের মধ্যে, সুযোগ সিমিত যতদিন সুষমা স্বরাজ বাংলাদেশের হর্তা কর্তা হিসেবে ভারতে বসেও হুকুমদারির ক্ষমতা রাখেন। তাই আজিই আপনার ভাঙ্গা বাড়ীতে আগুন লাগিয়ে নিজের ভাগ্য বদলে ফেলুন।

কি বিশ্বাস হচ্ছেনা? নাহলে রংপুরের পুরো ঘটনা অবজারব করে নিচের ৭ টি বিষয় উপস্থাপন করলাম তা পড়ুন তাহলে অনায়াসে বিশ্বাস করতে পারবেন।

১) রংপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ববি বলেন, “যাদের একটি ঘর পুড়ে গেছে তাদের ৫০ হাজার, যাদের ২টি ঘর পুড়ে গেছে তাদের ১ লাখ, যাদের ৩টি পুড়ে গেছে তাদের দেড় লাখ এবং যাদের চারটি ঘর পুড়ে গেছে তাদের ২ লাখ এবং যাদের ক্ষতি হয়েছে তাদের ৩০ হাজার টাকা করে বরাদ্দ দিয়েছি আমরা।(http://bit.ly/2zCufHn)

২) উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নতুন করে ঘরবাড়ি তৈরি করে দেওয়া হচ্ছে। রবিবার ঘর তৈরির কাজ শেষ হওয়ার কথা।

৩) কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে পরিবারপ্রতি ৫ হাজার টাকা করে আর্থিক সাহায্য দেওয়া হয়েছে। (http://bit.ly/2iTpkHq)

৪) পুলিশের পক্ষ থেকে ঠাকুরবাড়ি গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত ১০টি পরিবারকে বাড়ি নির্মাণে ৫ হাজার টাকা করে করে মোট ৫০ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য প্রদান করা হয়। (http://bit.ly/2moY4Wc)

৫) জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শুক্রবার রাতে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে খিচুড়ি দেওয়া হয়েছে। (http://pdnewsbd.com/6367-2/)

৬) ইউএনও জিয়াউর রহমান বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে ঘর নির্মাণের সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। ১০টি পরিবারকে তিন হাজার করে টাকা সাহায্য দেওয়া হবে। (http://bit.ly/2zWWpNM)

৭) জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদারের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ঘটনাস্থল ঠাকুরপাড়া গ্রাম পরিদর্শন করে। তারা ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবারকে ১০ হাজার করে টাকা সাহায্য দেন। (http://bit.ly/2AI6omY)

অপরদিকে ক্ষতিগ্রস্ত মুসলমানরা কি পেলো ?

লালচাঁদপুর গ্রামে শনিবার রাত ১০টার দিকে ঐ দিনের ঘটনায় নিহত হাবিবুর রহমানের (২৬) লাশ দাফন করা হয়। পুলিশ প্রহরায় লাশ দাফন করা হয় বলে তার বাবা আবদুর রাজ্জাক জানান। হাবিবুরের স্ত্রী মোসলেমা বেগম জানান, তিনি ও তার সন্তানরা লাশ শেষবারের মতো একনজর দেখতে পারেননি। (http://bit.ly/2hqnvkY)

অথচ যে ছয়জন নিরীহ মুসলমানকে হত্যা করা হল তাদের পরিবার কি বিচার এবং ক্ষতিপূরন পাবে?। মিথ্যা মামলা দিয়ে যে হাজার হাজার মুসলিমদের নির্যাতন করা হচ্ছে তাদের জন্য কি কিছু হবে। অথচ শুধু হিন্দু হলে নিজের ভাংগা ঘড়ে আগুন দিলেই লাখ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ পাওয়া যায়। তাহলে কদিন পর হিন্দুরা নিজেদের ঘরে গনহারে আগুন দিয়ে মুসলিম দের উপর দায় চাপিয়ে কোটিপতি হয়ে যাবে।


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: