11.15.2017

হিন্দু শাশুড়ি পুত্রবধুকে বললো “বৌমা! যোনি-পীঠটা তো ঠিকমতো তৈরী হয়নি।”

প্রখ্যাত নওমুসলিম আবুল হোসেন ভট্টাচার্য জন্মেছিলেন ব্রাহ্মণ পুরোহিত পরিবারে। তিনি ছোটবেলায় তার পরিবারের মাসি-পিসিদের মুখে যেসব কথা শুনেছিলেন, তা তিনি তুলে ধরেছেন তার আমি কেন ইসলাম গ্রহণ করলামবইতে।

বইটির ৮৫ পৃষ্ঠায় তিনি উল্লেখ করেছেনঃ- প্রাকৃতিক কারণে বড় খুড়িমা এবং পিশিমা উভয়কেই কয়েকদিন শিবলিঙ্গ তৈরীর কাজ থেকে বিরত থাকতে হয়। ফলে অনভ্যস্তা ছোট খুড়িমাকে সে কয়দিন কাজ চালিয়ে নিতে হয়েছিল।

অভ্যাস না থাকায় প্রথম দিন সে কিছুটা ভুল করেছিল। ওদিক দিয়ে অতিক্রম করার সময়ে হঠাৎ ঠাকুরমার (বড় ঠাকুরমার অর্থাৎ আমার পিতার জ্যোঠিমা) নজর সেদিকে পড়েছিল এবং সে বলে উঠলো, “বৌমা! যোনি-পীঠটা তো ঠিক হয়নি। ভেঙে ফেলে নতুন করে তৈরী করো আমি দেখিয়ে দিচ্ছি।একথা শুনে ছোট খুড়িমা প্রশ্ন করছিল, “যোনি-পীঠ কোনটা?” ঠাকুরমা বলছিল, “যেটার মধ্যে লিঙ্গ বসানো রয়েছে-কেন বিভিন্ন শিবমন্দিরে যেখানে পাথরের তৈরী বড় বড় শিবলিঙ্গ রয়েছে সেখানে তুমি কি দেখোনি কার মধ্যে এবং কী ভাবে লিঙ্গ বসানো থাকে?”

কথাগুলো ছিল একান্তরূপেই দেববিগ্রহ সম্পর্কিত। সুতরাং ভক্তিপ্লুত মনে এবং অত্যন্ত সহজ-সরলভাবেই এগুলো উচ্চারিত হচ্ছিল। তাই শাশুড়ি এবং বিধবা পুত্রবধুর মধ্যে কথার আদান-প্রদানে লিঙ্গ, যোনি প্রভৃতি শব্দ কোনও বাধা বা সংকোচের সৃষ্টি করছিল না।

আমরা প্রায়ই নিউজ পোর্টালগুলোতে ভারতে পিতা কর্তৃক কন্যা ধর্ষণ, এমনকি ছেলে কর্তৃক মায়ের ধর্ষণেরও খবর পাই। নাউযুবিল্লাহ! কিন্তু এর কারণ তো স্পষ্ট। যেই সমাজের কথিত ধর্মের কারণে শাশুড়ি ও পুত্রবধুর মধ্যে লিঙ্গ-যোনির আলাপ হতে পারে, সেই সমাজে পিতা-কন্যার মধ্যে লিঙ্গ-যোনির সম্পর্ক হবে এটাই তো স্বাভাবিক! সবচেয়ে বড় কথা মহান আল্লাহ পাক তিনি তো বলেই দিয়েছেনঃ নিশ্চয়ই মুশরিকরা অপবিত্র। (সূরা তওবা শরীফ, আয়াত শরীফ ২৮)


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: