11.12.2017

কালেরকণ্ঠ সহ সকল হলুদ মিডিয়ার বিরুদ্ধে মুসলমান যদি এখনি সোচ্চার না হয় তবে ভবিষ্যৎ অন্ধকার


বাংলাদেশে যতো হলুদ মিডিয়া আছে, তাদের অপর নাম প্রোপাগান্ডা মেশিন। এই প্রোপাগান্ডা মেশিনের বিরুদ্ধে জনগণ যদি এখনই ব্যবস্থা না নেয়, তবে এটি খুব শিঘ্রই পুরো বাংলাদেশকে মায়ানমার বানিয়ে দেবে। বাংলাদেশের মুসলমানদের রোহিঙ্গাদের মত নামিয়ে দেবে বঙ্গোপোসাগরে

ভূমিদস্যূ বসুন্ধরা গ্রুপের পত্রিকা কালেরকণ্ঠআপনারা হয়তো জানেন না যে এই বসুন্ধরা গ্রুপ লক্ষ লক্ষ নিরীহ মানুষের জমি দখল করে রেখেছেআমার খুব কাছের একজন এই বসুন্ধরার কাছে শেষ সম্বল জমিটুকু হারিয়ে হার্টফেল করে মৃত্যুবরণ করেনএ ধরনের কত হাজার মানুষের মৃত্যুর জন্য দায়ী যে এই বসুন্ধরা গ্রুপ তার কোন হিসেব নেই

সেই বসুন্ধরা গ্রুপের পত্রিকা কালের কণ্ঠ রংপুরের ঘটনা নিয়ে খবর করেছে- মূল স্ট্যাটাসদাতা খুলনার মাওলানা হামিদী, ৮৭ বার শেয়ার হয় সুত্রঃ (http://bit.ly/2jj1LvG)

যে কেউ দেখে ভাববে, মাওলানা হামিদী বোধ হয় ফেক আইডি খুলে কাজটি করেছেকিন্তু মাওলানা হামিদীর আইডিতে (http://bit.ly/2Aw9J7Y) গিয়ে দেখুনতিনি এই পোস্টের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছেনঅথচ সেই প্রতিবাদকেই বিকৃত করে খবর করেছে ভূমিদস্যূ কালেরকণ্ঠউদ্দেশ্য- অমুসলিমরা মুসলমানদের ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করবে, কিন্তু সেটা নিয়ে প্রতিবাদ করতে পারবে না মুসলমানরা করলেই সন্ত্রাসী, জঙ্গি, ফেতনাবাজ বানিয়ে দেওয়া হবেকরলে তাদের গুলি করে মারা হবে, গ্রেফতার করা হবে, মিথ্যা প্রোপাগান্ডা দিয়ে গ্রেফতার করানো হবে

আপনারা দেখবেন, গত দুইদিন যাবত সব টিভি চ্যানেল ও পত্র-পত্রিকা রংপুরের ঘটনা নিয়ে শত শত নিউজ করছেনিউজের বিষয়বস্তু- মুসলমানরা অমুক ট্রাকে করে জড়ো হয়েছে, অমুকে মাইকিং করছে, তমুকে এটা নিয়ে স্ট্যাটাস দিছে, টিটু রায় নিরক্ষর-হিন্দুরা সব ইনোনেস্ট, হিন্দুদের ঘর পুড়ে তারা কান্নাকাটি করছে ইত্যাদি ইত্যাদি

কিন্তু এই যেঃ- হিন্দুরা ফেসবুকে এত এত ধর্ম অবমানান করতেছে সেটা নিয়ে কেন মিডিয়া নিউজ করে নামুসলমানরা এই ঘটনা নিয়ে সপ্তাহ ধরে প্রতিবাদ করতে, এটা নিয়ে কেন মিডিয়া নিউজ করে নাইতখন কেন তারা চুপ ছিলোতাদের বোবা থাকার কারণেই মানুষ উত্তেজিত হয়েছেটিটু রায় ধর্ম অবমাননা করার সাথে সাথে যদি কালেরকণ্ঠ নিউজ করতো- একটি উগ্রপন্থী হিন্দু আইডি থেকে ধর্ম অবমাননার করা হয়েছে, অথচ প্রশাসন নিসচুপ? বিটিআরসি যদি টিটুর আইডি বন্ধ করে দিতো, তাহলে আজ এই ঘটনা ঘটতনা। অথচ মিডিয়া এবং প্রশাসন সেটা করে নাইচুপ করে ছিলোকিন্তু যখনই একটি ঘটনা ঘটে গেছে তখন মুসলমানদের বিরুদ্ধে একের পর এক নিউজ করছে

ক্রিকেট খেলোয়াড় মাশরাফির সাথে বেদায়বি করলে যদি একাধিক নিউজ হতে পারে, তবে মুসলমানদের কলিজার টুকরা নবী রাসুলুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে নিয়ে পবিত্র ক্বাবা শরীফ কে নিয়ে নিয়ে ব্যঙ্গ করলে কি একটি নিউজ হওয়ার যোগ্যতা রাখে না ?

আমি বাংলাদেশের ডি মোরালাইজড মুসলমানদের বলবোঃ- আপনারা চুপ করে থাকলেও নিস্তার পাবেন না কখনইরংপুরের ঘটনায় ৫০ জনের বেশি আটক করা হয়েছে, এরা সবাই কিন্তু ঘটনার দিন ছিলো নাগ্রেফতার আতঙ্কে ২০ গ্রাম পুরুষশূণ্য হয়ে গেছে (http://bit.ly/2hmIR2u )এই ২০ গ্রুমের সব পুরুষ নিশ্চয়ই ঘটনায় জড়িত ছিলো নাকিন্তু তবুও তাদের ফাসানো হয়েছেসুতরং আপনি আড়ালে থাকলেই যে নিস্তার পাবেন তা নয়সম্প্রতি মায়ানমারে হামলা চালিয়েছিলো নাকি আরসানামক বাহিনী, সেই আরসার সদস্য সংখ্যা ৫০০ হবে নাকিন্তু সেটাকে টার্গেট করে ১০ লক্ষ রোহিঙ্গা মুসলমানকে তাড়িয়ে দেয়া হয়েছেএই ১০ লক্ষ মুসলমান রোহিঙ্গা কিন্তু মায়ানমার বাহিনীর উপর হামলা চালায়নিতারা ভালো মানুষ ছিলোকিন্তু তাদের ভালোমানুষী তাদের রক্ষা করেনিবাঘ যখন হরিণকে খেতে চায়, তখন ইচ্ছামত উপলক্ষ বানিয়ে নেয়বলে- তুই পানি ঘোলা করিসনি তো কি হয়েছে, তো বাপ-দাদা চৌদ্দ পুরুষ তো পানি ঘোলা করেছেআমি তোকে খাবোইবাংলাদেশের হলুদ মিডিয়া যে মিথ্যা প্রোপাগান্ডা শুরু করেছে, তার আলটিমেট গন্তব্য কিন্তু মুসলমানরা রোহিঙ্গাদের মত বঙ্গোপোসাগরে নামবেএখন যত ভালো সেজে থাকুন তাদের কব্জা থেকে আপনি ছুটতে পারবেন না

আমি সবাইকে অনুরোধ করবোঃ- আপনারা সবাই একযোগে কালেরকণ্ঠ অফিসে ফোন করুণফোন নম্বর- ৮১৫৮০১২, ৮৪৩২০৪৮, ৮৪৩২৩৭২-৭৫, ৮৪৩২০৪৮, ৮৪৩২৩৭৬বলুন- এই নিউজের মাধ্যমে তারা মিথ্যা প্রোপাগান্ডা ছাড়াচ্ছেদ্রুত এই লেখাটি যেন তারা সরিয়ে নেয় এবং পরদিন ক্ষমা চায়একই সাথে প্রশ্ন করুণ- রংপুরের ঘটনায় তারা শুরু থেকে নিউজ করেনি কেন? এখন কেন নিউজ করে হিন্দু-মুসলিম দ্বন্দ্ব বৃদ্ধি করছেএ ধরনের পক্ষপাতিত্বমূলক সাংবাদিকতা অবশ্যই সন্দেহজনকএ জন্য অবশ্যই তাদের জবাবদিহি হওয়া উচিত


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: