8.26.2018

আমাদের তাহাজ্জুদ পড়নে ওয়ালা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নাস্তিক আসাদ নূর কে মুক্তি দিয়েছেন


লিখালিখি ছেড়ে দেওয়ার চেষ্টা করছি তাই ফেসবুক প্রোফাইল অফ। এর পরেও একজন মুসলিম ভাই হঠাৎ করে একটি লিঙ্ক দিলেন যেখানে গিয়ে দেখি যে কুখ্যাত নাস্তিক আসাদ নূর ৯৫ ভাগ মুসলমানদের ভিড়ে জিবন্ত দাঁড়িয়ে টিএসসিতে চা খাচ্ছে আর মুসলমানদের গালিগালাজ করছে।

নাস্তিক আসাদ নূর জেল থেকে কীভাবে বের হল তা চিন্তা করেও কূল পাচ্ছিনা। বিশ্বাস করেন কিছু সময়ের জন্য সেন্সলেস হয়ে গিয়েছিলাম। এদিকে জেল থেকে বের হয়ে সেই আগের মত ইসলাম ধর্ম নিয়ে আজেবাজে কথা বার্তা বলতেছে সে!!
জানতে ইচ্ছে হয় এসমস্থ ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিকেরা কি সবসময় এভাবে ছাড়া পেয়েই যাবে? প্রতিনিয়ত ইসলামের বিরুদ্ধে অবমাননাকর বক্তব্য দিয়ে মুসলমানদের আঘাত করেই যাবে? এখন যদি কেউ ধৈয্য হারিয়ে এই নাস্তিকে চাপাতির কোপ বসিয়ে দেয় তাহলে এর জন্যে কি মুসলমান দায়ী হবে কিংবা ইসলাম দায়ী থাকবে?

এর দায় অবশ্যই সরকারকেই নিতে হবে! এ সরকার কি কোন ইসলাম বিদ্বেষীদের বিছার কখনও করেছে! উল্টো ইসলাম বিদ্বেষীদের আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়ে বছরের পর বছর ধরে মুসলমানদের অন্তরে আঘাত করে যাচ্চে!

একটা মানুষ কখন আইন হাতে তুলে নেয়? যখন সে কোন বিছার পায় না কিন্তু মানসিক কিংবা শারিরিকভাবে নির্যাতনের শিকার হতে থাকে ফলে সে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে, হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে উগ্র হয়ে উঠে আর তখন পরিস্থিতি তাকে বাধ্য করে আইন হাতে তুলে নিতে!

আমরা ৯৫% মুসলমান ইসলাম অবমাননা কারীদের উপযুক্ত বিছার চাই! কেউ যাতে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করতে না পারে সে জন্যে আইন চাই! কিন্তু আফসোস এই চাওয়া আমাদের কোনোদিন পূরন হবেনা বলেই মনে হয়। কারন সরকার যখন এরকম একটা নাস্তিক কে ছেঁড়ে দেবে তখন আর সরকারের উপর কিভাবে আস্তা রাখা যায়?

কার ভয়ে, কিসের ভয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এরকম একজন চরম নাস্তিক ইসলাম বিরোধীকে ছেঁড়ে দিলেন? অথচ আসাদ নূর তো মুজিব তনয়া শেখ হাসিনাকেও চরম অশ্লীল গালিগালাজ করেছিলো তাইলে এই ব্যাপারে তিনি কিছু করলেন না কেন। সাধারন মানুষ কিছু বললে তাকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়, লাগানো হয় ৫৭।

যাইহোক এমন এক দিনে এরকম একটি মর্মন্তুদ খবর দেখতে হলো যে, কুখ্যাত নাস্তিক আসাদ নূর কে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মুক্ত করে দিয়েছেন যেনো আরো বেশী করে ইসলাম অবমাননা করতে পারে অথচ এদিকে পার্শ্ববর্তী দুষমন দেশ পাকিস্তানের নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান পাকিস্তানের শিক্ষা সিলেবাসে কুরআন শরীফ অধ্যায়ন বাধ্যতামূলক এই মর্মে আইন পাশ করেছেন।


সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুনঃ

এডমিন

আমার লিখা এবং প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বে আইনি।

0 facebook: